কাগজ প্রতিবেদক: বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফের মেয়ে ও ফরিদপুর জেলা বিএনপির সদস্য চৌধুরী নায়াব ইউসুফ কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন। তিন দিন তিন রাত কারাভোগের পর বুধবার বিকেল ৩টার দিকে ফরিদপুর জেলা কারাগার থেকে তিনি মুক্তি পান। এ সময় চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফসহ বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা তাকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে নেন।

এর আগে দুপুর আড়াইটার দিকে ফরিদপুরের জেলা ও দায়রা জজ মো. হেলাল উদ্দিন গোলডাঙ্গির ইউসুফ হত্যা মামলায় ১০ হাজার টাকা মুচলেকায় চৌধুরী নায়াব ইউসুফের জামিন মঞ্জুর করেন। আদালতে চৌধুরী নায়াব ইউসুফের আইনজীবী অ্যাডভোকেট শহিদুল্লাহ জাহাঙ্গির জামিন প্রার্থনা করে বলেন, মামলার এজাহারের বর্ণনায় আসামি নায়াব ইউসুফ ঘটনাস্থলে ছিলেন না। তিনি একজন নারী এবং ফরিদপুরের সম্ভ্রান্ত পরিবারের সন্তান।

এ সময় সরকার পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট লক্ষ্মণ সাহা জানান, মামলার বাদী এই আসামির জামিনে তার আপত্তি নেই বলে জনিয়েছেন। এ সময় আদালত মামলার বাদী সোহরাব বেপারীকে তলব করলে সোহরাব বেপারী আদালতে উপস্থিত হয়ে জানান যে, এই মামলার আসামি চৌধুরী নায়াব ইউসুফকে জামিন দিলে তার কোনো আপত্তি নেই। এরপর আদালত বাদীর অনাপত্তির বিষয়টি উল্লেখ করে তাকে ১০ হাজার টাকা মুচলেকায় স্থায়ী জামিন মঞ্জুর করেন। এরপর আদালত থেকে জামিন আদেশ কারাগারে পৌঁছানোর পর বিকেল ৩টার দিকে তিনি কারাগার থেকে মুক্তি লাভ করেন।

এ সময় চৌধুরী নায়াব ইউসুফের বাবা বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক মন্ত্রী চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, তার স্ত্রী চৌধুরী শায়লা কামাল ইউসুফ, চৌধুরী সাউদ ইউসুফসহ জেলা বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আলী আশরাফ নান্নু, জেলা বিএনপির স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট গোলাম রব্বানী ভুইয়া রতন, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক মামুনুর রশীদ মিঠু, জেলা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক একে কিবরিয়া স্বপন, শহর বিএনপির সভাপতি রেজাউল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা মিরাজসহ নেতাকর্মীরা তাকে ফুলের মালা দিয়ে বরণ করে নেন।

উল্লেখ, বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ১১ ডিসেম্বর সন্ধায় সদর উপজেলার নর্থচ্যানেল ইউনিয়নের গোলডাঙ্গিতে একটি চায়ের দোকানে কথা কাটাকাটির জের ধরে হাতাহাতিতে আহত হন ইউসুফ বেপারী নামে এক ব্যক্তি। পরে রাতে তিনি মারা যান। এ ঘটনায় নিহতের ভাই সোহরাব বেপারী বাদী হয়ে ৩৮ জনকে আসামি করে কোতয়ালী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।