নিহত রিনা বেগম

কাগজ প্রতিনিধি: সাভারে জাতীয় অর্থোপেডিক (পঙ্গু) হাসপাতালের এক কর্মীকে শরীরে কেরোসিন ঢেলে জীবন্ত পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে তার স্বামীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনার পর থেকে স্বামী শহিদুল ইসলাম পলাতক রয়েছেন।
আজ বৃহস্পতিবার ভোর রাতে সাভারের হেমায়েতপুরের জয়নাবাড়ি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহতের নাম- রিনা বেগম (৪৫) এবং তিনি পঙ্গু হাসপাতালে আয়ার কাজ করতেন।
নিহতের বোন রিপা বেগমের অভিযোগ, রাজধানীর শেরেবাংলা নগর এলাকায় জাতীয় অর্থোপেডিক (পঙ্গু) হাসপাতালে আয়ার কাজ করার সুবাদে তার বোনের সঙ্গে নিরাপত্তা কর্মী শহিদুল ইসলামে পরিচয় হয়। তিন বছর আগে তারা বিয়ে করেন। তখন থেকেই বিভিন্ন ব্যবসায় বিনিয়োগের কথা বলে শহিদুল রিনার কাছ থেকে প্রায় ১৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন।
এর জেরে বৃহস্পতিবার ভোরের দিকে তাদের দাম্পত্য কলহ চরম আকার ধারণ করে। এক পর্যায়ে শহিদুল রিনাকে পিটিয়ে শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেন। পরে রিনা নিজেই শরীরে আগুন দিয়ে আতœহত্যা করেছে বলে মসজিদে পানির জন্যে ছুটোছুটি করতে থাকেন শহিদুল।
রিপার অভিযোগ, ‘বাড়িতে পানি থাকলেও শহিদুল আগুন নেভানোর জন্যে সেই পানি ব্যবহার না করে দ্রুত তার বোনের দেহে আগুন ছড়িয়ে পড়ার উদ্দেশে পানি আনতে পাশের মসজিদে যান। আমাদের তখনই সন্দেহ হয়, পরে দ্রুত রিনাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে নেওয়ার পর কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ’
তবে তার আগেই শহিদুল হাসপাতাল থেকেই গা ঢাকা দেয় বলে জানান রিপা। শহিদুল ইসলাম আগের স্ত্রীকে নিয়ে রাজধানীর শ্যামলী এলাকায় থাকতেন বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী।
সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএফএম সায়েদ জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় সাভার মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।