ডিমলায় ৫ম শ্রেনীর ছাত্রী ধর্ষনের ঘটনায় আটক সেরাজুল

মহিনুল ইসলাম সুজন: নীলফামারীর ডিমলার পূর্ব ছাতনাই ইউনিয়নে মায়া নামের(ছদ্মনাম) ৫ম শ্রেনীর এক শিশু ছাত্রী ধর্ষনের ঘটনায় সোমবার(১১ই মার্চ)ধর্ষক সেরাজুল ইসলাম(৫৫)কে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী। ধর্ষক সেরাজুল ওই ইউনিয়নের পুর্ব ছাতনাই গ্রামের মৃত,জাবেদ আলীর পুত্র। এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে,উপজেলার পুর্ব ছাতনাই ইউনিয়নের তিস্তা নদী সংলগ্ন দক্ষিন ঝাড়সিংহেশ্বর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেনীর ছাত্রী ও ওই ইউনিয়নের পুর্ব ছাতনাই গ্রামের নুর ইসলামের শিশু কন্যাকে রোববার(১০ই মার্চ) বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় তার বাবা-মা তাকে দুপুরে বাড়িতে রেখে ক্ষেতে কাজ করতে যায়।এ সময় শিশুটি বাড়ির পাশে খেলার সময় তাকে একাকি পেয়ে জোরপুর্বক মুখ বেধে ভুট্টা ক্ষেতে নিয়ে ধর্ষন করে একাধিক বিবাহিত লম্পট সেরাজুল ইসলাম। এতে শিশুটির প্রচুর রক্তক্ষরন হয়। ছাত্রীটির পিতা নুর ইসলাম ও মাতা কমলা বেগম সন্ধ্যায় বাড়ীতে ফিরে এসে দেখে একমাত্র কন্যা ঘরের ভিতরে কান্না করছে। তারা ঘটনাটি মেয়ের মুখে জানতে পেরে রাতেই রক্তাক্ত অবস্থায় শিশুটিকে ডিমলা সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক রাশেদুজ্জমান শিশুটির অবস্থা বেগতিক দেখে রাত ১২টায় নীলফামারী আধুনিক হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। বর্তমানে শিশু ছাত্রীটি নীলফামারী সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে । ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে মেয়েটির মা কমলা বেগম এই প্রতিবেদককে বলেন,আমার শিশু কন্যাকে যে লম্পট ধর্ষন করেছে আমি তার কঠোর শাস্তি চাই।যাতে এই ধর্ষকের শাস্তি দেখে সমাজে আর কোনো শিশু এমনটার শিকার না হয়। পুর্ব ছাতনাই ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ খাঁন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন,ছাত্রী ধর্ষনের ঘটনায় ধর্ষক সেরাজুল ইসলামকে আটক করে পুলিশে দেয়া হয়েছে। ডিমলা থানার ওসি(তদন্ত)সোহেল রানা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন,শিশু ধর্ষনের ঘটনায় জড়িত ধর্ষককে আমরা এলাকাবাসীর সহায়তায় আটক করেছি।এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে ।