কাগজ প্রতিনিধি: চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় জাহানারা খাতুন (৫৫) নামে এক গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা করেছে তার স্বামী। হত্যার পর ঘাতক স্বামী ইবাদত নিজেও গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। নির্মম এ দুটি হত্যার ঘটনা ঘটেছে আলমডাঙ্গা উপজেলার বড় বোয়ালিয়া গ্রামে। পুলিশ বুধবার দিনগত মধ্যরাতে ঘটনাস্থল থেকে নিহত দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করেছে।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, পারিবারিক কলহের জের ধরে বুধবার রাত ১০টার দিকে ইবাদত আলী তার স্ত্রী জাহানারা খাতুনকে নিজের শোয়ার ঘরে কুপিয়ে হত্যা করে। এরপর সে নিজে ঘরের আড়ার সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।
আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ আসাদুজ্জামান মুন্সি জানান, স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে রাত ১টার দিকে ঘটনাস্থল থেকে দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। পরে লাশ দুটি ময়নাতদন্তের জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দা মতিয়ার রহমান জানান, ইবাদত হোসেন ও জাহানারা দম্পতি ভিক্ষাবৃত্তি করে সংসার চালাতো। পারিবারিক কলহের কারণে ওই দম্পতি মাঝে মধ্যেই বিরোধে জড়াতো। কিন্তু সেই বিরোধ যে হত্যায় রূপ নিবে এটা তারা ভাবতেও পারেনি।
চুয়াডাঙ্গার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. কলিমুল্লাহ ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের জানান, স্থানীয়দের বর্ণনা মতে, পারিবারিক বিরোধের কারণেই ইবাদত হোসেন তার স্ত্রীকে হত্যার পর নিজে আত্মহত্যা করেছে। তারপরও বিষয়টি নিয়ে আমরা অনুসন্ধান করব।