কাগজ প্রতিবেদক: ফেনীর সোনাগাজীতে যৌন হয়রানির অভিযোগকারী নুসরাত জাহান ওরফে রাফি (১৮) এক ছাত্রীকে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা করেছে দুর্বৃত্তরা। দগ্ধ সেই ছাত্রীর অবস্থা এখন আশঙ্কাজনক। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজের আইসিইউতে রাখা হয়েছে।
এর আগে পরীক্ষা দিতে গেলে আলিম পরীক্ষার কেন্দ্রের ভিতর তার গায়ে আগুন ধরিয়ে দিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়। গতকাল সকালে পৌর শহরের সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। ওই ছাত্রী সোনাগাজী পৌরসভার চরচান্দিয়া গ্রামের এ কে এম মুসার মেয়ে।
ছাত্রীর ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান বলেন, গতকাল সকালে আরবি প্রথম পত্র পরীক্ষা ছিল। তিনি তার বোন নুসরাতকে নিয়ে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে যান। ওই সময় কয়েকজন ছাত্র ও অফিস সহকারী মো. মোস্তফা তাকে মাদ্রাসায় ঢুকতে বাধা দেন। পরে তিনি তার বোনকে মাদ্রাসায় ঢুকিয়ে দিয়ে চলে যান। এর আগে ২৭ মার্চ ওই ছাত্রীকে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসায় নিজ কক্ষে ডেকে নিয়ে অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলা তার শ্লীলতাহানি করেন। এ অভিযোগে মামলা হয়েছে। ওই মামলায় অধ্যক্ষ এখনো কারাগারে।
জানা গেছে, মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার পক্ষের কয়েকজন শিক্ষার্থী নুসরাতকে মাদ্রাসার ছাদে ডেকে নিয়ে যায়। তারা অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে করা মামলা তুলে নিতে তাকে চাপ দেয়। এ সময় নুসরাত কিছু না বলায় তিনজন শিক্ষার্থী তার হাত ধরে আর অন্য একজন তার গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়।
তার চিৎকারে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও স্থানীয় লোকজন দ্রুত তাকে উদ্ধার করে প্রথমে সোনাগাজী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে ফেনী সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠান। সেখান থেকে আজ আইসিউতে হস্তান্তর করা হয়েছে।

Previous articleহত্যা মামলায় খালেদা জিয়ার জামিন আপিলেও বহাল
Next articleখালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে এক সঙ্গে লড়ব: মান্না
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।