শহীদ শংকুর মা দিপালী সমজদার

জয়নাল আবেদীন: মহান মুক্তিযুদ্ধে রংপুরে প্রথম শহীদ শংকুর মা দিপালী সমজদার চিকিৎসার অভাবে এখন মৃত্যু শয্যায় । পচাঁশি বছরের এই বৃদ্ধা তার বাড়ির উঠোনে পা পিছলে পড়লে তার দুটি হাড় ভেঙ্গে যায়। চিকিৎসকের অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে স্টিলের দু’টো হাড় সংযোজনের মাধ্যমে তাকে সারিয়ে তোলা হলেও প্রায় দু’মাস থেকে তিনি বিছানায় শয্যাযায়ী। চিকিৎসকের পরামর্শ তাকে আরও দু’মাস বিছানাতেই থাকতে হবে। রংপুর নগরির কামাল কাছনার সরকারীভাবে পাওয়া বাড়িতে আর্থিক অনটনের কারণে ওষুধতো দুরের কথা, দু’বেলা খাবার জোটানোও কষ্টকর হয়ে পড়েছে। কোন আত্বীয় স্বজন কিংবা হৃদয়বান ব্যক্তি ন্যুনতম সাহায্য সহযোগিতা কললেও তা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল।সবমিলেই চিকিৎসা অভাবে শহীদ এই মাতা এখন মৃত্যুমুখে। শংকুর বড়ভাই কুমারেশ কিছুটা মানসিক ভারসাম্যহীন। আয় রোজগার করতে পারেন না। দিপালী সমঝদার আগে অন্যের বাসায় পুজোর ভোগ (রান্না) এবং সেলাই‘র কাজ করে কোন রকমে ছেলে তার ও স্ত্রী এবং দুই নাতি নিয়ে সংসার চালাতেন। কিন্তু বর্তমান বয়সের ভাড়ে ন্যুব্জ হওয়া এবং চোখে তেমন দেখতে না পারায় গত কয়েক বছর যাবত তাও করতে পারছেন না। ফলে ছেলের স্ত্রী একটি বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আয়ার চাকুরি নিয়ে যা পাচ্ছেন তা দিয়েই ৫ সদস্যের সংসারটিকে চালিয়ে নেয়ার চেষ্টা চালাচ্ছেন। কিন্তু সম্প্রতি শ্বাশুরির এই দুর্ঘটনায় তিনিও ভেঙ্গে পড়েছেন। একদিকে শ্বাশুরির সেবা অন্যদিকে চাকরি । এছাড়াও বেতনের যে টাকা পান তা দিয়ে সংসার চলে না। ওষুধতো দুরের কথা। এ অবস্থায় শহীদ এই মাতা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীসহ মুক্তিযোদ্ধা এবং দেশের বিত্তবান মানুষের কাছে হাত বাড়িয়েছেন চিকিৎসা খরচের জন্য। তাকে টাকা পাঠানোর বিকাশ মোবাইল নম্বর- ০১৭০৪২৪৬৯৬৮।

Previous articleবিকাল ৩টার মধ্যে রাসেলকে কিছু টাকা পরিশোধ না করলে ব্যবস্থা: হাইকোর্ট
Next articleউদ্যোক্তা হতে বয়স লাগে না, শুধু একটা আইডিয়া
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।