শহরের ট্রাফিক মোড়ে অবস্থানরত ব্যাটারী চালিত অবৈধ অটোরিক্সার জট

তাবারক হোসেন আজাদ: নিয়ন্ত্রণহীন অস্বাভাবিক অবৈধ অটোরিক্সার দৌরাত্ম্যে লক্ষ্মীপুরের রায়পুর শহরে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা মারাত্মকভাবে ব্যাহত হচ্ছে। দিন দিন এ সমস্যা প্রকট হচ্ছে। যত্রতত্র পার্কিং, স্ট্যান্ড এবং যেখানে-সেখানে থামানো, আবার কখনও রাস্তাজুড়ে দাঁড়িয়ে থাকছে এই অটোবাইক। পেছনে কোনো যানবাহন আটকা পড়ল, না মানুষ আটকা পড়ল তা নিয়ে অটোবাইক চালকদের কোনো মাথাব্যথা নেই। শুধু যানবাহন নয়, রায়পুর শহরে মানুষের চেয়ে অটোরিক্সার সংখ্যাই যেন বেশি দেখা যাচ্ছে। নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে সড়কে চলাচল করা এ যানবাহনটির যন্ত্রণায় শহরের মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে। যততত্র পার্কিং আর সড়কজুড়ে দাঁড়িয়ে থাকার কারণে শহরে এখন দীর্ঘ যানজট থাকে সবসময়। দেখা গেছে, শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক এবং মোড়ে মাঝ বরাবর অনেক অটোরিক্সা জটলা করে দাঁড়িয়ে থাকে যাত্রীর আশায়। আবার রাস্তার মাঝখানে থামিয়েই যাত্রী ওঠানো এবং নামানো হয়। এই চরম বিশৃঙ্খল অবস্থা এখন রায়পুর শহরের প্রধান সড়কগুলোতে। মাঝে মাঝে সচেতন মহলের অনুরোধের ভিত্তিতে ওসি একেএম আজিজুর রহমান মিয়ার নেতৃত্বে থানা পুলিশ রাস্তায় নেমে যানজট মুক্তসহ সড়কের দু’পাশের ফুটপাত থেকে হকার উচ্ছেদ করা হয়। অথচ পৌর কর্তৃপক্ষ বা প্রশাসনের কারোরই কোনো মাথাব্যথা নেই। রায়পুর পৌরসভার লাইসেন্স শাখা সূত্রে জানা গেছে, পৌরসভার লাইসেন্সধারী অটোরিক্সার সংখ্যা হচ্ছে বর্তমানে প্রায় দুই শতাধিক। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে এই সংখ্যা হবে তিন গুণেরও বেশি। অথচ রায়পুর শহরের ভেতরে প্রধান সড়কগুলোর অবস্থানের আলোকে কী পরিমাণ যানবাহন শহরের অভ্যন্তরে চলাচল করলে তা সহনীয় পর্যায়ে থাকে, এর হিসেব কোনো দফতরেই নেই। রায়পুর শহরের রায়পুর বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে ট্রাফিক মোড়, আলিয়া মাদ্রাসা সংলগ্ন, পীর বাড়ী সংলগ্ন, উপজেলা পরিষদ রোড সংলগ্ন, নতুন বাজার, ভূঁইয়া রাস্তার মাথা, মীরগঞ্জ সড়ক পর্যন্ত। এসব এলাকায় যাতায়াতে যে সড়কগুলো ব্যবহার করা হয় তা হচ্ছে উপজেলা পরিষদ সড়ক, আলিয়া মাদ্রাসা সড়ক, আব্বাস আলী সড়ক, মধ্য বাজার সড়ক, টিএসসি সড়ক, কাপিলাতলী সড়ক, পীর ফজলুল্লাহ সড়ক ও পোষ্ট অফিস সড়ক। এ সড়কগুলো এমনিতেই খুবই সরু এবং একইভাবে সড়কগুলো খুবই ব্যস্ততম। এ সড়কগুলোতেই অটোরিক্সার উপদ্রব থাকে সবচেয়ে বেশি। দীর্ঘ সময়ের যানজট থাকে সড়কগুলোতে। বিশেষ করে ট্রাফিক মোড়, আলিয়া মাদ্রাসা সড়ক, মুড়ি হাটা সড়ক, মধ্য বাজার সড়ক পর্যন্ত সর্বক্ষণ থাকে যানজট তথা অটোরিক্সার দখলে। একদিকে যানজটতো আছেই অন্যদিকে ভাড়া নির্ধারিত না থাকায় ৩ গুন হারে ভাড়া আদায় করছে চালকরা। শাহ আলম পাটওয়ারী নামে একজন শিক্ষক বলেন, সপ্তাহের প্রতি সোমবার ও শুক্রবার বাজারের দিন। প্রতিদিন স্কুল শুরুর আগে ও ছুটির পরে পৌর শহরের ট্রাফিক মোড় সহ নিষিদ্ধ ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সার দৌরত্ম্যের কারণে জীবন যাত্রা চরম ব্যহত হচ্ছে। দীর্ঘ সময় যানজটও লেগে থাকে। পৌর কর্তৃপক্ষ নির্ধারিত ভাড়া না করে দেওয়ায় প্রায় সময় স্বাভাবিক ভাড়া থেকে প্রায় ৩ গুন বেশি হারে ভাড়া হাকিয়ে নেয়। কোন প্রতিবাদ করলে অটোরিক্সা চালকদের হাতে লাঞ্ছিত হতে হয়। বিষয়টি দেখার মতো কেউ নাই। এ ব্যাপারে রায়পুর পৌরসভার মেয়র হাজী ইসমাইল খোকন বলেন, রায়পুর একটি প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা। আইনী জটিলতার কারণে দীর্ঘদিন ধরে অটোরিক্সা সহ বিভিন্ন যান বাহনের লাইসেন্স দেওয়া বন্ধ রয়েছে। বিভিন্ন মানুষ অটোরিক্সার বিষয়ে অভিযোগ করেছেন। পৌরসভার নির্ধারিত ভাড়া সহ সকল বিষয়ে সহসাই আমরা এসবের বিরুদ্ধে অভিযান চালানো হবে

Previous articleরাজাপুরে নদী থেকে যুবকের ভাসমান লাশ উদ্ধার
Next articleকেশবপুরে উচ্ছেদ আতঙ্কে ৪ পরিবারের ১০ শিক্ষার্থীর উচ্চ শিক্ষা নিয়ে সংশয়
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।