হুমায়ুন কবির: নেত্রকোণার কেন্দুয়া উপজেলায় লাল মিয়া ফকির (৮০) ওরফে ‘মোটা মামা’ বলে পরিচিত এক ‘আধ্যাতিক’ ফকিরের দাফন নিয়ে বিরোধ দেখা দিয়েছে। ভক্ত ও পরিবারের সদস্যদের মধ্যে এ বিরোধ দেখা দেয়। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে শনিবার (১৩ এপ্রিল) বিকাল সাড়ে চারটা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা পর্যন্ত থানাপুলিশের উপস্থিতিতে প্রায় তিন ঘণ্টাব্যাপী দুই পক্ষের মধ্যে বৈঠক হলেও বিষয়টির কোনো সুরাহা হয়নি। ফলে যে কোনো ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে লাশটি এখন থানা হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। গত শুক্রবার (১২ এপ্রিল) দিবাগত রাত ১০টার দিকে লাল মিয়া ফকির সান্দিকোনা গ্রামের জনৈক ভক্ত ইনছান মিয়ার বাড়িতে মারা যান।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, লাল মিয়া ফকির ওরফে মোটা মামা বলে পরিচিত ওই ব্যক্তির গ্রামেরবাড়ি উপজেলার পাইকুড়া ইউনিয়নের চিটুয়া-নওপাড়া গ্রামে। তিনি অনেকদিন ধরেই বাড়িছাড়া। এ অবস্থায় গত চার মাস ধরে তিনি সান্দিকোনা ইউনিয়নের সান্দিকোনা গ্রামের ইনছান মিয়ার বাড়িতে বসবাস করছিলেন। একপর্যায়ে ওই ফকিরের নামে দশ শতাংশ জমিও দলিল করে দেন ইনছান মিয়া।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বার্ধক্যজনিত কারণে লাল মিয়া ফকির গত শুক্রবার (১২ এপ্রিল) দিবাগত রাত ১০টার দিকে ওই ভক্তের বাড়িতে মারা যান। পরে সেখানে তাঁর কবরও খোড়া হয়। এক পর্যায়ে খবর পেয়ে লাল মিয়া ফকিরের স্বজনেরা সান্দিকোনায় ছুটে এসে লাশ তাদের গ্রামেরবাড়িতে নিয়ে যাওয়ার দাবি করতে থাকেন। কিন্তু ভক্তরা তা কোনোভাবেই মানতে রাজি হননি। পরে বিষয়টি থানাপুলিশ পর্যন্ত গড়ালে কেন্দুয়া থানার ওসি ইমরাত হোসেন গাজীর নেতৃত্বে একদল পুলিশ জানাজাস্থল সান্দিকোনা স্কুল অ্যান্ড কলেজের খেলার মাঠে ছুটে আসে। পরে পুলিশের উপস্থিতিতে বিকাল চারটার দিকে জানাজা অনুষ্ঠিত হলেও দুই পক্ষের বিরোধের কারণে লাশের দাফন আর হয়নি।

এ অবস্থায় কেন্দুয়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মাহমুদুল হাসান, ওসি ইমরাত হোসেন গাজী এবং সান্দিকোনা ও পাইকুড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান যথাক্রমে আজিজুল ইসলাম ও হুমায়ূন কবির চৌধুরী উভয় পক্ষকে নিয়ে সান্দিকোনা ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স ভবনে বৈঠকে বসেন।ওই বৈঠক সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা পর্যন্ত চললেও লাশ দাফনের বিষয়ে কোনো সমঝোতা হয়নি। এরইপ্রেক্ষিতে বিরোধ এড়ানোর জন্য শেষ পর্যন্ত লাশটি থানা হেফাজতে নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়।

বৈঠক শেষে কেন্দুয়া থানার ওসি ইমরাত হোসেন গাজী জানান, লাশের দাফন নিয়ে কোনো পক্ষই ছাড় দিতে নারাজ। তাই বিষয়টির কোনো সুরাহা না হওয়ায় লাশটি এখন থানা হেফাজতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। পরবর্তীতে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

Previous articleনুসরাত হত্যার প্রতিবাদে কেশবপুরে মানববন্ধন
Next articleরামপুরায় গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু, সন্দেহের তীর স্বামীর পরকীয়া
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।