স্মার্টকার্ড

মুহ. মিজানুর রহমান: মানিকগঞ্জের সিংগাইরে বিভিন্ন অজুহাতে টাকা হাতিয়ে নেয়ার সময় হাতেনাতে ধরে উত্তম মধ্যম দিয়েছে জনতা। আর এ কারনে স্মার্টকার্ড বিতরন বন্ধ করে দিয়েছে নির্বাচন অফিস। জানাগেছে, উপজেলার চারিগ্রাম ইউনিয়নের গত ১৯ মে থেকে উপজেলা নির্বাচন কমিশন স্মার্টকার্ড বিতরন শুরেু হয়। প্রথম দিন চারিগ্রাম এসএ খান হাইস্কুল প্রথমদিন কার্ড বিতরনের সময় নতুন ভোটার শ্লিপ না থাকায় মোটাংকে টাকা দাবী করে কম্পিউটার অপরেটররা হাতিয়ে নেয় হাজার হাজার টাকা। প্রতিটি স্মার্ট কার্ড বাবদ ৪ শ থেকে ৫ শ টাকা করে হাতিয়ে নেন তারা। তাদের দাবীনুযায়ী টাকা দিলে মিলে সোনার হরিণ নামের স্মার্টকার্ড মিলে না। স্মার্টকার্ড বিতরনের দ্বিতীয়দিন গতকাল সোমবার দুপুরে আসাদসহ একাধিক ব্যাক্তির কাছে বিভিন্ন অজুহাতে স্মার্টকার্ড শ্লিপ বাবদ সরকারী ৩৭০ টাকাসহ ৫শত টাকা দাবী করেন শফিক ও বিমল। এ টাকা বাবদ রশিদ চাইলে তাদের সাথে কথাকাটাকাটির এক পর্যায় আসাদসহ স্থানীয়দের উপর চড়াও হন বিমল ও শফিক। একপর্যায় আসাদ ও স্থানীয়রা তাদের উপর ক্ষিপ্ত হন। এ ঘটনায় উপজেলা নির্বাচন অফিসের কর্মকর্তা মো. আবদুল আলীম ঘটনাটি সুরাহা করে দেন। ওই দিন সন্ধ্যায় স্থানীয়রা বিমলের সাথে টাকা লেনদেন নিয়ে বাক- বিতন্ডার সৃষ্টি হয়। সিংগাইর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। এ ঘটনায় উপজেলা নির্বাচন অফিসার মাহাবুব রোমান চৌধুরী চারিগ্রামে স্মার্টকার্ড বিতরন বন্ধ করে দেন। ওইদিন রাত সাড়ে নয়টার দিকে পুলিশ পাহারায় স্মার্টকাডৃ বিতরনের সকল যন্ত্রাংশসহ অপারেটরদের সরিয়ে নেয়া হয়। জালাল নামের এক ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করে বলেন, আমার কার্ডের নাম্বার থাকা সত্বেও সিংগাইর নির্বাচন অফিস থেকে নাম্বার এনে ও আমাকে ৪ শত টাকা দিতে হয়েছে। ইউপি সদস্য আবদুল হালিম বলেন, সারাদিন জনগনের সেবা করতে ভোটার তালিকা দেখে শ্লিপ দিয়েছি তারপরও তারা টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। শেষ পর্যন্ত আমার নিজের র্স্মাটকার্ডটি তারা দেয় নাই। এ ব্যাপারে চারিগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান সাজেদুল আলম স্বাধীন বলেন, আমার কাছে একাধিক অভিযোগ এসেছে আমি বাড়তি টাকা নিতে নিষেধ করেছি। কিন্ত শফিকসহ অন্যরা আমার কথা শুনেননি। উপজেলা নির্বাচন অফিসার মাহাবুব রোমান চৌধুরীর সাথে যোগাযোগের চেস্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি।