জীবননগরে শ্বশুরবাড়ীতে জামাইকে শিকল দিয়ে আটকে রাখা হয়

সদরুল আইন: জীবননগরে শ্বশুরবাড়ীতে জামাইকে শিকল দিয়ে আটকে রাখার অভিযোগে স্ত্রী, শাশুড়িসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার রাতে তাদেরকে আটক ও সোহরাব হোসেনকে উদ্ধার করা হয়।

আটকৃতরা হলেন সোহরাবের স্ত্রী নিলা, শাশুড়ি মেহেরজান এবং মামা শ্বশুর মসলেম উদ্দিন। তাদেরকে মঙ্গলবার দুপুরে জীবননগর আমলী আদালতে হাজির করা হলে বিচারক তাদেরকে জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ দেন।

জীবননগর থানার ওসি শেখ গনি মিয়া জানান, সামাজিক মাধ্যমে শিকলবন্দি জামাই সোহরাব হোসেনের ছবি প্রকাশের পরপরই তাকে উদ্ধার এবং অভিযুক্তদের আটক করে থানায় নেয়া হয়।

তিনি বলেন, বেআইনিভাবে আটক ও মারধরের অভিযোগে নির্যাতিত সোহরাবের দায়ের করা মামলায় তার স্ত্রী, শাশুড়ি ও মামা শ্বশুরকে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে জীবননগরের হ্যালিপ্যাড সংলগ্ন পাড়ায় মেয়েকে শারীরিকভাবে নির্যাতনের অভিযোগে জামাই সোহরাবকে শিকল দিয়ে বন্দি করে রাখে শ্বশুরবাড়ির লোকজন। সোমবার সন্ধ্যায় সোহরাবের শিকলবন্দি একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দ্রুত ছড়িয়ে পড়লে ওই বাড়িতে উৎসুক জনতা ভিড় করে।

সোহরাব বলেন, ৮-১০ দিন আগে মোবাইলে টাকা রিচার্জ করাকে কেন্দ্র করে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে আমি আমার স্ত্রী নীলার হাতে আঘাত করি। তারপর সে আমার ওপর রাগ করে বাবার বাড়ি জীবননগরে চলে আসে। আমি রোববার সন্ধ্যায় আমার স্ত্রী ও সন্তানকে ঈদের জামা-কাপড় দিতে এলে আমার মামা শ্বশুর আমাকে লোহার শিকল দিয়ে গাছের সঙ্গে তালাবদ্ধ করে রাখেন এবং মারপিট করেন।