কেশবপুরে কৃষকের পানের বরজ উচ্ছেদ করে ভূয়া ভূমিহীনের নামে বন্দোবস্ত!

জি এম মিন্টু: যশোরের কেশবপুরে সহকারি তহশীলদার আমজাদ হোসেনের বিরুদ্ধে কৃষকের লাখ লাখ টাকার পানের বরজ উচ্ছেদ করে এক ভূয়া ভূমিহীনের নামে জমি বন্দোবস্ত দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় কৃষক মোন্তাজ আলী সরদার বাদি হয়ে বেতীখোলা গ্রামের রেহেনা বেগম ও সহকারী ভূমি উন্নয়ন কর্মকর্তা আমজাদ হোসেনকে বিবাদি করে যশোর বিজ্ঞ কেশবপুর সহকারি জজ আদালতে চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার মামলা করেছেন। যার নং-৭৭/১৯। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে ১৭ জুন পরবর্তী শুনানীর দিন ধার্য্য করেছে।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার নারায়নপুর গ্রামের এবাদালী সরদার ওরফে বেহারার এসএ ৮২৪ ও ৮২৯ দাগে ১.৮৯ একর সম্পত্তি মোন্তাজ আলী সরদার, তার স্ত্রী আখিরন নেছা, ২পুত্র শুকুর সরদার ও মোস্তফা সরদারসহ বিভিন্ন ব্যক্তিবর্গের কাছে হস্তান্তর করেন। যা বর্তমান জরিপে রেকর্ড হয়ে ১০০৫ দাগে প্রিন্টেড কপি গেজেট আকারে প্রকাশ হয়েছে। আখিরন নেছা মৃত্যুবরণ করলে তার ওয়ারেশ মোন্তাজ সরদার, শুকুর আলী সরদার, মোস্তফা সরদার, কামরুজ্জামান ও শাহিদা বেগম ভোগ দখল করে আসছেন। এ জমির উত্তরাংশে পূর্ব-পশ্চিমে কেশবপুর পাঁজিয়া সড়ক অবস্থিত। নালিশী ১০০৫ দাগের পশ্চিমে উত্তরাংশে বেনালিশী ১০০৪ দাগের ৩ শতক হালট শ্রেণীর জমি রয়েছে। ওই ৩ শতক জমি সরকার পক্ষ থেকে বেতীখোলা গ্রামের সামছুর সরদারের স্ত্রী রেহেনা বেগমকে ভূমিহীন হিসেবে রেজিস্ট্রি দলিলমূলে বন্দোবস্ত দেয়া হয়।
জমির মালিক শুকুর আলী অভিযোগ করে বলেন, রেহেনা বেগমের নামে কেশবপুর পৌরসভার বালিয়াডাঙ্গা মৌজার ৮৪/১ খতিয়ানে মূল্যবান ৫ শতক জমি রয়েছে। এরপরও তিনি তথ্য গোপণ করে স্থানীয় তহশীলদারকে অনৈতিক সুবিধা দিয়ে অবৈধভাবে ওই হালটের বন্দোবস্ত নিয়েছেন। অথচ সরকারের পক্ষ থেকে তাদেরকে কোন নোটিস করা হয়নি। গত ১৯ জুন ওই জমি উচ্ছেদের নামে উপসহকারি কমিশনার (ভূমি) আমার এক বিঘা জমির পানের বরজ উচ্ছেদ করে আড়াই লাখ টাকার ক্ষতি সাধন করেছেন। বর্তমান রেহেনা বেগম ১০০৪ দাগের ৩ শতক জমি অবৈধভাবে বন্দোবস্ত নিয়ে স্থানীয় তহশীলদারের সহযোগিতায় ১০০৫ দাগের জমি দখল করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছেন। বিবাদিপক্ষ যাতে তাদের জমিতে প্রবেশ করতে না পারে সেজন্যে গত ১৫ মে আদালতে চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার মামলাটি করা হয়।
এ ব্যাপারে সুফলাকাটি ইউনিয়ন ভূমি অফিসের সহকারী ভূমি উন্নয়ন কর্মকর্তা আমজাদ হোসেন বলেন, ওটা সরকারি জমি হওয়ায় সহকারি কমিশনার (ভূমি) দখল মুক্ত করেছে। এছাড়া দখলদারদের ইউএনও দফতরে হাজির করে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়। এ ঘটনায় আদালতে মামলা হয়েছে। আমরা জবাব দাখিল করেছি। বিচারে যা হয় হবে।