লামা সুয়ালক সড়কের শীলের ঝিরি এলাকায় ধসের একাংশ

মো. নুরুল করিম: মেরামতের তিন মাসের মাথায় বান্দরবান জেলার লামা-সুয়ালক সড়ক ধসে পড়েছে। এছাড়া বিভিন্ন স্থানে সৃষ্টি হয়েছে ছোট বড় গর্তের। এতে করে সড়কে পূণরায় ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়ে যান চলাচল। মেরামত কাজে নিম্মামানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার, স্পেসিফিকেশন, সিডিউল ও প্রাক্কলন মোতাবেক মেরামত কাজ বাস্তবায়ন না করার কারণে সড়কটি জনদুর্ভোগে পরিণত হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছেন সড়কে চলাচলকারী জনসাধারণ ও গাড়ি চালকরা। সড়কের ধস ঢাকতে বালির বস্তা ব্যবহার করছে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান। সূত্র জানায়, বান্দরবান জেলা সদরের সাথে আন্ত:সংযোগ স্থাপনকারী লামা-সুয়ালক সড়ক। এ সড়ক দিয়ে লামা ও আলীকদম উপজেলার মানুষ বান্দরবান সদর ও লোহাগাড়া উপজেলায় চলাচল করে থাকেন। এছাড়া এই সড়ক হয়েই উপজেলা সদরে যাতায়াত করে উপজেলার গজালিয়া, সরই ও আজিজনগর ইউনিয়নের পূর্ব চাম্বি অংশের লক্ষাধিক মানুষ। গত বর্ষা মৌসুমে প্রবল বৃষ্টি ও পাহাড় ধসের কারণে লামা সুয়ালক সড়কটি যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। পরে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর সড়কটি মেরামতের জন্য টেন্ডার আহবান করে। বান্দরবান নির্বাহী প্রকৌশলীর কার্যালয় সিএইচটি-জিওবি (রক্ষণাবেক্ষণ) প্রকল্পের আওতায় লামা-সুয়ালক সড়কের চেইনেইজ ২০০০ থেকে ৫০০০ মিটার পর্যন্ত ৭৭ লক্ষ টাকা এবং চেইনেইজ ৫০০০মিটার থেকে ৯০০০মিটার পর্যন্ত ৬২ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ২টি প্যাকেজের মাধ্যমে মেরামতের জন্য মেসার্স মিলন ট্রেডার্স নামক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ প্রদান করে। গত বছর ২১ এপ্রিল মেরামত কাজ শুরু করে চলতি বছরের মার্চ মাসে মেরামত কাজ সম্পাদন করে চূড়ান্ত বিল উত্তোলন করে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি। অভিযোগ উঠেছে, কাজ বাস্তবায়নে সিডিউর মোতাবেক কার্পেটিং রোড মেরামত করা হয়নি। এছাড়া টু-ওয়াল ড্রেন নির্মাণে নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করা হয়েছে। পাশাপাশি পরিমাণমত নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার হয়নি। এ কারণে সড়কের বিভিন্ন অংশে ফাটল ধরেছে। কার্পেটিং মেরামতের থিকনেস সিডিউল মোতাবেক ১২ মি.লি দেওয়া হয়নি বলেও অভিযোগে জানা গেছে। সড়কে চলাচলকারী গাড়ি চালক মো. আবুল হোসেন, মোটর সাইকেল চালক কালাম, ফরহাদসহ অনেকে বলেন, সড়কের শিলেরঝিরি নামক স্থানে কালভাট নির্মাণ করা হলেও

উভয় পাশের এপ্রোজে প্রোটেকশন ওয়াল দেওয়া হয়নি। এসব কারণে মৌসুমের যেকোন মুহুর্তে লামা-সুয়ালক সড়কের বিরাট অংশ ধসে পড়ে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। সরেজমিন দেখা যায়, শিলেরঝিরি এলাকায় সড়কের একপাশ ধসে পড়েছে। পাশের ব্রিজটির দু পাশে মাটি ভরাট করা হয়নি। এছাড়া সড়কের বিভিন্ন স্থানে ছোট বড় অনেক গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এখন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের লোকজন সড়কের ধসকৃত স্থানে বালির বস্তা দিয়ে ভাঙ্গন ঠেকানোর চেষ্টা করছেন। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেমার্স মিলন ট্রেডার্সের পক্ষে মুজিবুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, শিলেরঝিরি এলাকায় কালভার্ট নির্মাণ করে উভয় পাশের এপ্রোজ রোডে মাটি ভরাটের কম্পেকশান না হওয়ায় ও বৃষ্টির কারণে সড়কে ধস নেমেছে। ধসকৃত স্থান মেরামত করে দেয়া হবে বলেও জানান তিনি। এ বিষয়ে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের লামা উপজেলা প্রকৌশলী মো. নাজিম উদ্দিন জানান, লামা-সুয়ালক সড়কের মেরামত কাজ শেষ হলেও আমরা সড়কটি রক্ষণাবেক্ষণ করে যাব। কোন অংশে সমস্যার সৃষ্টি হলে তাৎক্ষণিক মেরামত করা হবে।