কালিহাতীতে গ্রাহকদের কোটি টাকা আত্মসাত, ব্যাংক ঘেরাও

আবুল কালাম আজাদ: টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে ন্যাশনাল ক্রেডিট এন্ড কমার্স (এনসিসি) ব্যাংকের রামপুর শাখার গ্রাহকদের প্রায় কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে কর্মকর্তা মনিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে সোমবার দিন ব্যাপি এলাকায় ক্ষোভ, উত্তেজনা বিরাজ করছে ও সন্ধ্যা পর্যন্ত ব্যাংক ঘেরাও করে রাখে স্থানীয় গ্রাহক ও এলাকাবাসী। ব্যাংক ঘেরাও এর ছবি তুলতে গেলে সংবাদকর্মীদের ক্যামেরা কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা করে ব্যাংকের স্থানীয় দালালচক্র। অভিযুক্ত ব্যাংক কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম এছাড়াও অন্যান্য গ্রাহকদের কাছ থেকে বিভিন্নভাবে আরো প্রায় ৫০ লাখ টাকা আত্মসাৎ করার কথাও স্বীকার করে। ভুক্তভোগী কাতার প্রবাসী স্থানীয় সাদ্দাম হোসেন জানান, দীর্ঘদিন বিদেশে থাকাবস্থায় পরিবারের মাধ্যমে এনসিসি ব্যাংকের রামপুর শাখায় ৩৫ লাখ টাকা এফডিআর (ফিক্সড ডিপোজিট রিসিপ্ট) হিসাবে জমা রাখেন। ২২ সেপ্টেম্বও রোববার সে ওই এফডিআর হিসাব বিষয়ে খোঁজ নিতে এসে জানতে পারেন তার একাউন্টে কোন টাকার নেই এবং এফডিআর হিসাবটিও জাল ! এরপর একে একে ধরা পড়ে কর্মকর্তা মনিরুল ইসলামের জালিয়াতির ঘটনা। স্বাক্ষর জাল করে পুরো টাকাই তুলে ফেলেছেন সে। সকল গ্রাহকদের মধ্যে বিষয়টি ছড়িয়ে পড়লে, অন্যান্য গ্রাহকরা ব্যাংক হিসাব নিতে গেলে এসময় আরো আট গ্রাহকের ৬২ লাখ টাকা জালিয়াতি প্রমাণিত হয়। এসময় ব্যাংকে গ্রাহকদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে, স্টাফদের অবরুদ্ধ করে রাখে। গ্রাহকরা আত্মসাতকৃত সকল টাকা ফেরৎ সহ স্লোগানে স্লোগানে দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান। পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকার কথা জানিয়ে কালিহাতী থানার উপ-পরিদর্শক ওহাব মিয়া বলেন, আর্থিক লেনদেনে জালিয়াতির সত্যতা পেয়েছে পুলিশ। ৬২ লাখ টাকা জালিয়াতির কথা স্বীকার করে গ্রাহকদের টাকা ফেরত দেওয়া হবে বলে জানান রামপুর শাখার ব্যবস্থাপক আবুল কালাম আজাদ।

কালিহাতী থানার অফিসার ইন-চার্জ হাসান আল-মামুন জানান, এঘটনায় আরো অন্যান্য কর্মকর্তার যোগসাজশ থাকার বিষয়ে সন্দেহ জানিয়ে বলেন অতিদ্রুত আমরা এ বিষয়ে আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করছি।