বেলকুচি ইউএনও'র বদলীতে কৃষকদের মিষ্টি খেয়ে আনন্দ উল্লাস

এম,এ,মুছা: সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) এস,এম সাইফুর রহমানের বদলী হওয়ায় তৃণমুলের কৃষকেরা মিষ্টি বিতরণ করে আনন্দ উল্লাস করেছেন। তার বিরুদ্ধে সরকারী ধান ক্রয়ে প্রান্তিক কৃষকদের হয়রানিসহ নানা অভিযোগ উঠেছে। রবিবার বিকালে উপজেলা খাদ্য গুদাম চত্ত্বরে শতাধিক কৃষক মিষ্টি মুখ ও আনন্দ উল্লাস করে।

উপজেলার একাধিক কৃষক জানান, গত ২৩ আগষ্ট ২য় ধাপে ৫৯৮ মেট্টিকটন ধান ক্রয়ে মাইকিং করে প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে কৃষকদের উপজেলা চত্বরে হাজির করেন। এসময় কৃষকের নাম তালিকা লিপিবদ্ধ করতে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়। তখন সাধারণ কৃষকরা ইউএন’র উপড়ে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে সেখানে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয় এবং ইউএনও উপজেলা কৃষি অফিসে অবস্থান নেন। ঘটনার পর থেকে ইউএনওর প্রতি বেলকুচির কৃষকদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করে।

এদিকে গত ১৯ সেপ্টেম্বর ইউএনও এস,এম সাইফুর রহমানকে বদলী করে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে নিযুক্ত করার খবর ছড়িয়ে পড়লে। শুক্রবার সন্ধায় তিনি কর্মস্থল ত্যাগ করার বিষয়টি জানাজানি হলে কৃষকদের মনে স্বস্তি ফিরে আসে।

ব্যাপারে পৌর এলাকার ক্ষিদ্রমাটিয়া গ্রামের ইমরান জানান, ধান বিক্রির রিসিভ নিতে এসে ইউএনও উক্তেজিত হয়ে চেয়ার তুলে ডিল মেরেছিল। তার কথার বাইরে কেউ ধান বিক্রি করতে পারবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছিল। চালা সাতরাস্তা মহল্লার কৃষক সাইদুর রহমান জানান, কৃষকদের মারপিটের প্রতিবাদ করায় যুবলীগের আহব্বায়ক সাজ্জাদুল হক রেজাসহ স্থানীয় কয়েকজন যুব নেতার বিরুদ্ধে মামলা করেন তিনি। দেলুয়া গ্রামের কৃষক ছাত্তার রানা, সেচের সনদ দেবার নামে ইউএনও সাইফুর রহমান সাধারন কৃষকদের হয়রানি করেছে। নানা তালবাহানা করে বিলম্ব করেছে। রানীপুরা মহল্লার কৃষক চাঁন মোহাম্মদ জানান, জমি থাকতেও আমাদের সেঁচের আবেদন গ্রহন করা হয়নি। নানা ভাবে হয়রানী করা হয়েছে। তার বদলির খবরে আমরা আনন্দিত। আমাদের মনে স্বস্তি ফিরে এসেছে।

এদিকে সদর ইউপি চেয়ারম্যান মীর্জা সোলায়মান ও ধুকুরিয়াবেড়া ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রশিদ শামীম জানান, এ উপজেলায় উন্নয়ন মূলক কাজের কোন জনপ্রতিনিধিদের সাথে সমন্বয় না করেই ইউএনও তার খেয়াল খুশি মত কাজ করতেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রকল্প “জমি আছে ঘরনেই” প্রকল্পে তিনি স্বেচ্ছাচারিতা করেছে। এছাড়া মাসিক সমন্বয় সভায় আমাদের সাথে অশালীন আচরণ করতেন। এছাড়া কৃষকদের সাথেও খারাপ ব্যবহার করেছে তিনি। এ ব্যাপারে বিদায়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার এস,এম সাইফুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, আমরা সরকারি চাকুরী করি। সরকার যেখানে ঠিক মনে করে সেখানে নিয়ে যান। তিনি অভিযোগ গুলো অস্বীকার করেছেন।