আপিল বিভাগে আজহারের মৃত্যুদন্ডের রায় বহাল রাখায় রংপুরে স্বস্তি প্রকাশ

জয়নাল আবেদীন: আপিল বিভাগে এটিএম আজহারের মৃত্যুদন্ডের রায় বহাল রাখায় রংপুর ও বদরগঞ্জ উপজেলার মানুষ স্বস্তি প্রকাশ করেছেন। ৭১ সালে এটিএম আজাহার দিনাজপুর জেলার পার্বতিপুর থেকে শুরু করে রংপুর জেলার বিভিন্ন এলাকায় হত্যাকান্ড চালিয়েছে। সেই সাথে বাড়ি ঘরে অগ্নিসংযোগ, লুটপাটও চালিয়েছে। আজহারুলের নির্যাতনের শিকার ভুক্তভুগি পরিবারের সদস্য জাসদ (ইনু) রংপুর জেলা সভাপতি সাখাওয়াত রাঙ্গা জানান, তার বড় ভাই রফিকুল ইসলাম নান্নু সেই সয় আওয়ামী ছাত্রলীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক ছিলেন, তার ভাইকে রংপুর নগরীর বেতপট্টি এলাকা থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে রংপুর কলেজের একটি ছাত্রাবাসে নিয়ে গিয়ে বেশ কয়েকদিন আটকে রেখে নির্যাতন করে। রংপুর আইনজীবী সমিতির সভাপতি ও পিপি আব্দুল মালেক জানান, এটিএম আজহারুল দিনাজপুরের পার্বতিরপুরসহ রংপুরের বিভিন্ন এলাকা থেকে নিরিহ মানুষদের ধরে নিয়ে গিয়ে গুলি করে হত্যা করেছেন। আজহারুল ছিল এই এলাকার মুর্তিমান আতংক। তার সহাতায় পাক সেনারা বিভিন্ন এলাকা থেকে মুক্তিযোদ্ধাসহ মেয়েদের ধরে এনে রংপুর টাউন হলে নির্যাতন করার পর হত্যা করে সেখানকার একটি কুয়ায় ফেলে রাখত। নির্যাতনে সে অচেতন হয়ে পড়লে মৃত ভেবে সেখানে ফেলে রেখে যায়। পরে পরিবারের সদস্যরা তাকে সেখান থেকে উদ্ধার করে। এর পর প্রায় দেড় বছর চিকিৎসার পর ভাল হয়ে উঠে। রাঙ্গা জানান, আজহারের নির্যাতনে অনেক নিরিহ মানুষ পঙ্গু হয়েছে। সে মেয়েদের ধরে নিয়ে গিয়ে পাক সেনাদের হতে তুলে দিত। এই রায়ে তার পরিবারের সদস্যরা খুশি। রায় যেন দ্রুত বাস্তবায়ন হয় সেজন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান। বদরগঞ্জ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডিপুটি কমান্ডার কমান্ডার মাহাবুবার রহমান হাবলু জানান, বদরগঞ্জ বাসী আজ সস্তির নিশ্বাস ফেলেছে। ৭১ আজহারের নির্যাতন এখনো অনেক মানুষ বয়ে বেরাচ্ছে। সরকার যেন রায় দ্রুত কার্যকর করে। বদরগঞ্জ উপজেলার সর্বত্র রায়ে খুশিতে একে অপকে মিষ্টি বিতরন করেছে। কৃষক মতিন জানান, এই রায়ের প্রতি সমর্থন জানিয়ে তা দ্রুত কার্যকর করার দাবী জানান। ব্যবসায়ী রমিজ উদ্দিন জানান, বদরগঞ্জ উপজেলাবাসীসহ জাতি আজ কলংক মুক্ত। তবে যত দ্রু রায় কার্যকর হবে ততই জাতির জন্য মঙ্গলকর। তিনি দ্রুত রায় কার্যকর করার দাবী জানান।