লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে মেঘনার ভয়াবহ ভাঙ্গণ, বিলীণ হচ্ছে বিস্তৃর্ণ জনপদ

তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে মেঘনার অব্যাহত ভাঙ্গণে বাস্তুহারা হয়ে পড়ছে এ অঞ্চলের লক্ষাধিক পরিবার। মেঘনা নদীর ৩৭ কিলোমিটার তীর সংরক্ষণ বাঁধ প্রকল্পের কাজ ধীর গতির কারণে বাস্তুহারার সংখ্যাও দিন দিন বেড়েই চলছে। মেঘনার অব্যাহত ভাঙ্গনে বিলীন হচ্ছে কমলনগর উপজেলার হাজার হাজার একর ফসলি জমি। প্রতিনিয়ত এ অঞ্চলের মানুষ হারাচ্ছে তাদের ভিটে-মাটি। গত ২০ দিনে ভাঙ্গণ তীব্র আকার ধারণ করায় মসজিদ-মাদ্রাসা, শিক্ষা প্রতিষ্টান ও বিভিন্ন সরকারী স্থাপনা এরই মধ্যে গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এর মধ্যে উপজেলার লুধুয়া ঘাটে ভাঙ্গণের মারাত্মক ঝুঁকিতে রয়েছে লুধুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। গত কয়েক দিনে ভয়াবহ ভাঙ্গনের মুখে পড়েছে এ উপজেলার বিভিন্ন জনপদ। মেঘনার অস্বাভাবিক ভাঙ্গণে জায়গা-জমি ও সহায় সম্বল হারিয়ে পরিবার পরিজন নিয়ে বিভিন্ন স্থানে মানবেতর জীবন-যাপন করছে এসব এলাকার হাজারো মানুষ। প্রতিদিন চোখের সামনে বিলীন হচ্ছে বসত-বাড়ী, ফসলী জমি, মসজিদ, মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন স্থাপনা। ভাঙ্গনের তীব্রতায় নদী গর্ভে বিলীন হয়েছে প্রিয়জনের শেষ স্মৃতি কবরস্থানটুকুও। এতে করে চরম আতঙ্কে রয়েছেন স্থানীয়রা। হুমকির মুখে রয়েছে কমলনগর উপজেলার বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনাও। এদিকে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা জানালেন, জিও ব্যাগ ডাম্পিং করেও ভাঙ্গণের তীব্রতা কমানো যাচ্ছে না। এদিকে ভাঙ্গণরোধে তীর সংরক্ষণ বাঁধ নির্মাণের উদ্যেগ না নেয়া ও জিও ব্যাগ ডাম্পিং এর অনিয়মকেই দুষলেন স্থানীয়রা। তারা বলছেন, ভাঙ্গণরোধে কার্যকর ব্যবস্থা না নিয়ে এক সময় কমলনগর উপজেলা জেলার মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাবে। পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) লক্ষ্মীপুরের কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, মেঘনার সবচেয়ে বেশি ভাঙ্গণ কবলিত এলাকা হিসেবে লক্ষ্মীপুরের কমলনগর উপজেলার লুধুয়া বাজার, চর কালকিনি, চর লরেন্স, চরফলকন, সাহেবের হাট ও রামগতি উপজেলার সবুজগ্রাম, বড়খেরী ও সদর উপজেলার বুড়ির ঘাট এলাকাকে চিহিৃত করা হয়েছে। মেঘনা নদীর ভাঙ্গন থেকে রক্ষায় তীর সংরক্ষণে উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় তিন ধাপে ৩৭ কিলোমিটার নদীর তীর রক্ষা বাঁধ নির্মাণ কাজে প্রায় সাড়ে ১৩ শত কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে। প্রথম ধাপে ২০১৪ সালে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে রামগতি ও কমলনগর উপজেলায় মেঘনা নদী ভাঙন প্রতিরোধে ১৯৮ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে কমলনগর উপজেলার মাতাব্বর নগর এলাকায় এক

কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ করা হয়। দ্বিতীয় ধাপে এ উপজেলার সাহেবের হাট থেকে মতিরহাট এলাকায় ৮ দশমিক ২২৪ কিলোমিটার এবং তৃতীয় ধাপে রামগতির আলেকজান্ডার থেকে কমলনগর উপজেলার চরফলকন এলাকা পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার এবং কমলনগর উপজেলার চরফলকন থেকে মাতাব্বর নগর এলাকায় সাড়ে ১০ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ করা হবে। স্থানীয়রা জানান, বর্তমানে নদীর ঢেউ ও খর¯্রােত জোয়ার-ভাটা তেমন না থাকলেও ভাঙ্গনের তীব্রতা থেকে কোনভাবেই রক্ষা পাওয়া যাচ্ছে না। ভাঙ্গণ অব্যাহত থাকলেই অচিরেই কমলনগর উপজেলা শহর হাজিরহাটসহ উপজেলার বিভিন্ন সরকারী স্থাপনা নদী গর্ভে তলিয়ে যাবে। মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাবে পুরা কমলনগর উপজেলা। এই অবস্থায় ভিটেমাটি রক্ষাসহ কমলনগর উপজেলাকে নদী ভাঙনের হাত থেকে বাঁচাতে দ্রুত বাঁধ নির্মানের দাবী স্থানীয়দের। পরিসংখ্যান বলছে, গত ২০ বছর ধরে মেঘনা নদীর অব্যাহত ভাঙনে রামগতি কমলনগর উপজেলার ৩১টি ছোট বড় হাট বাজার, ৩৫টি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা, ৩০টি ঘুর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র, ৫২টি মোবাইল নেটওয়ার্ক টাওয়ার, ৪০০ কিলোমিটার কাঁচা-পাকা রাস্তা, ৩৭ কিলোমিটার বেড়ি বাঁধ, ৫০ হাজার একর ফসলি জমি, ৪৫ হাজার ঘরবাড়িসহ কয়েক হাজার কোটি টাকার সরকারি-বেসরকারী স্থাপনা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এদিকে মেঘনার ভাঙ্গণ থেকে নিজেদের ভিটে-মাটি রক্ষায় নিজ খরচে বিভিন্ন সময় ডোল বাঁধ, জঙ্গলা বাঁধ ও জিও ব্যাগ ডাম্পিংয়ের উদ্যোগ নেয় স্থানীয়রা। এতেও ঠেকানো যায়নি ভাঙ্গণের তীব্রতা। ভাঙ্গণরোধে সরকারের কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণে চলতি বছর একাধিকবার বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ও রামগতি- কমলনগর বাঁচাও মঞ্চ এর উদ্যোগে নদীর পাড়ে দোয়া ও মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে। রামগতি-কমলনগর বাঁচাও মঞ্চের আহ্বায়ক আবদুস সাত্তার পলোয়ান ক্ষোভ প্রকাশ করে জানান, বর্ষায় মেঘনার ভাঙ্গণরোধে দু’এক জায়গায় জিও ব্যাগ ডাম্পিং করার উদ্যোগ নিলেও কার্যত ভাঙ্গণ রোধে কার্যকর কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। ২০১৪ সালে একনেকের বৈঠকে রামগতি-কমলনগরকে নদী ভাঙ্গা থেকে রক্ষায় ৩৭ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণের অনুমােদন দেয়া হয়। কিন্তু সেখানে কাজ হয়েছে মাত্র ৫কিলোমিটার। এঅবস্থায় ভাঙ্গণরোধে বাকী ৩২ কিলোমিটার বাঁধ দ্রুত বাস্তবায়ন করার দাবী জানান তিনি। ভাঙ্গনকবলিত কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা যায়, জোয়ার কিংবা ভাটার উত্তাল ¯্রােত না থাকলেও বসতবাড়ী, ফসলি জমি ভেঙে পড়ছে মেঘনার বুকে। মেঘনার অব্যাহত ভাঙনে বিলীন হয়ে যাচ্ছে একের পর এক জনপদ। ফলে দিন দিন ছোট হয়ে আসছে কমলনগর উপজেলার মানচিত্র। গত চৈত্র মাসেও যে জমিতে ধান ছিলো সেই জমি

এখন নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। একদিন যারা নদীভাঙ্গা মানুষকে রায়ত (থাকার জায়গা) দিতো আজ তারাই আজ ভিটে-মাটি হারিয়ে নিঃস্ব। কমলনগর উপজেলার লুধুয়া এলাকার বাসিন্দা নুর আলম মাঝি জানান, গত ২০ দিনে মেঘনা নদী যেভাবে এ অঞ্চলের ভিটেমাটি গিলে খাচ্ছে তা গত ২০ বছরেও এভাবে ভাঙ্গতে তিনি দেখেননি। অতিদ্রুত বাঁধ নির্মাণ করে মেঘনার ভাঙ্গনের হাত থেকে এ উপজেলাবাসীকে রক্ষার দাবী করেন তিনি। মেঘনার করাল গ্রাসে দশবার ভাঙ্গনের শিকার একই এলাকার বাসিন্দা নজির মিয়া জানান, মেঘনার ভাঙ্গনে এ পর্যন্ত দশবার বসতভিটে হারিয়েছি। সবকিছু হারিয়ে দায়দেনা করে লুধুয়া বাজারের পাশে বসতভিটে নির্মাণ করলেও এখন মেঘনার ভাঙ্গনের তীব্রতায় আতঙ্কে রয়েছেন তিনি। পানি উন্নয়ন বোর্ডের লক্ষ্মীপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী (চলতি দায়িত্ব) ফারুক আহম্মেদ জানান, গত এক মাসে ভাঙ্গনের তীব্রতা বেড়েছে। এরই মধ্যে কমলনগের ভাঙ্গন কবলিত ৪০০ মিটার এলাকায় ৭০ হাজার জিও ব্যাগ ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ওয়েস্টার্ণ ইউনিয়নের মাধ্যমে ডাম্পিং করা হয়েছে। তবুও রক্ষা করা যাচ্ছে না বিভিন্ন স্থাপনা। ভাঙ্গন রোধে জিও ব্যাগ ডাম্পিংয়ের কাজ চলমান আছে। ভাঙ্গন ঠেকাতে কর্তৃপক্ষের কাছে বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে। বরাদ্দ পেলে আগামী বর্ষাকালে মেঘনার ভাঙ্গন মোকাবিলা করা সম্ভব হবে বলেও জানান এই কর্মকর্তা।