বিয়ে করতে প্রেমিকের অস্বীকৃতি, গায়ে আগুন দিয়ে যুবতীর আত্মহত্যার চেষ্টা

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বরিশালে দীর্ঘদিনের প্রেমের পর বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়েও প্রেমিকাকে বিয়ে না করে অন্যখানে বিয়ে করায় গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছেন এক যুবতী। গুরুতর অবস্থায় তাকে ভর্তি করা হয়েছে শেরে-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। এদিকে ওই তরুণীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চিকিৎসকরা ঢাকায় প্রেরণের পরামর্শ দিলেও আর্থিক সঙ্গতি না থাকায় তাকে ঢাকা নিতে পারছে না পরিবার। এ ঘটনায় ৪ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গত মঙ্গলবার রাতে বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলার মাধবপাশা ইউনিয়নের বাদল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। দগ্ধ সাহিদা (২০) ওই এলাকার মৃত সাহেব আলী খানের মেয়ে। অভিযুক্ত প্রেমিক কাশেম আলীও একই এলাকার রহম আলী হাওলাদারের ছেলে।

সাহিদার মা মেহেরজান জানান, ওই এলাকার কাশেম আলীর সাথে দীর্ঘদিন প্রেমের সম্পর্ক ছিল সাহিদার। তাদের মধ্যে বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। এক পর্যায়ে কাশেম তাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায়। এ নিয়ে দেনদরবারও হয়। কিন্তু কাশেম কিছুতেই সাহিদাকে বিয়ে করতে রাজি না হয়ে অন্যখানে বিয়ে করে। এই খবর শুনে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে রাগে-অপমানে তার নিজের গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায় সাহিদা। তার ডাক-চিৎকারে লোকজন এসে আগুন নিভিয়ে বরিশাল শেরে-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন এন্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে ভর্তি করে। এ ঘটনায় অভিযুক্তদের কঠোর বিচার দাবি করেন তিনি।

শেরে-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের রেজিস্ট্রার ডা. কুশল ইশতিয়াক জানান, ওই যুবতীর শ্বাসনালী সহ শরীরের ২৬ ভাগ পুড়ে গেছে। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে ঢাকায় নেওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। সামর্থ না থাকায় তারা ঢাকা যেতে পারে নি।

এদিকে নগরীর বিমান বন্দর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আব্দুর রহমান মুকুল জানান, এ ঘটনায় দগ্ধ যুবতীর মা বাদী হয়ে বুধবার বিকেলে ৬ জনকে আসামি করে নগরীর বিমানবন্দর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। প্রধান অভিযুক্ত কাশেমসহ ৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপরজনকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।