রংপুর জেলায় বছরে পেঁয়াজের চাহিদা প্রায় ২৩ হাজার ২শ ৮৭ মেট্রিক টন

জয়নাল আবেদীন: পেঁয়াজের দাম আবরো বৃদ্ধি পাওয়ায় রংপুরের টিসিবির ভ্রাম্যমান বিক্রয় কেন্দ্র গুলোতে ভিড় বাড়ছে ক্রেতাদের। চাহিদার বিপরীতে উৎপাদনে ঘাটতি এবং বছর জুড়ে আমদানী নির্ভরতার কারণে পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধির কারণ বলে জানিয়েছেন কৃষি কর্মকর্তারা । কৃষি প্রধান রংপুর অঞ্চলে বছরের পর বছর দাম না পাওয়ায় কৃষকরা আগ্রহ হারিয়েছেন পেঁয়াজ চাষে । যদিও এবার কিছুটা বেড়েছে কৃষিবিদদের মতে। অঞ্চল ভেদে জমির সুষম বন্টনের পাশাপাশি ন্যায্য মূল্য নিশ্চিত করা গেলে পেঁয়াজে চাষে কৃষকদের উৎসাহিত করা সম্ভব । বিবিএস -এর সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী রংপুর জেলায় বছরে পেঁয়াজের চাহিদা প্রায় ২৩ হাজার ২শ ৮৭ মেট্রিক টন। জেলার মোট চাহিদা উৎপাদিত পরিমান দ্বারা মেটানো সম্ভব হলেও সামষ্টিক চাহিদার বিপরীতে ঘাটতি থাকায় বছর জুড়েই নির্ভর করতে হয় আমদানী করা পেঁয়াজের ওপর । এবারে কৃষক পর্যায়ে পেঁয়াজের ভালো দাম পেলেও বিগত সময়ে পেঁয়াজ চাষীরা টানা লোকসানে থাকায় আগ্রহ কমেছে পেঁয়াজ আবাদে। ২০১৫-১৬ মৌসুমে রংপুর অঞ্চলে পেঁয়াজ আবাদ হয়েছিলো ৭ হাজার ১শ ২৫ হেক্টর,২০১৬-১৭ তে তা কমে দাঁড়ায় ৬ হাজার ৪শ ৭৮ হেক্টরে,২০১৭-১৮ তে ৬ হাজার ৩শ ৩৫ হেক্টর আর ২০১৮-১৯ শে আরো কমে দাঁড়ায় ৬ হাজার ১শ ৪২ হেক্টরে । তবে এবারে দাম থাকায় আবাদ বেড়েছে । কৃষিবিদদের মতে পেঁয়াজ আবাদ হয় এমন অঞ্চল গুলোকে গুরুত্ব দেয়ার পাশাপাশি বানিজ্যনীতি সমন্বয় এবং কৃষকদের উৎসাহিত করা গেলে চাহিদা অনুযায়ী উৎপাদন সম্ভব ।

কৃষি বিশেষঙ্গদের মতে আমদানী নির্ভরশীলতা কমিয়ে পেঁয়াজ উৎপাদন ও সংরক্ষনে টেকসই পদক্ষেপ নেয়া গেলে একদিকে যেমন কৃষক লাভবান হবেন; অন্যদিকে ভোক্তা পর্যায়েও এর দাম সহনীয় পর্যায়ে থাকবে । রংপুর নগরীর তপোধন এলাকার পেঁয়াজ চাষি সফর উদ্দিন জানান, প্রতিবছর পেঁয়াজ চাষ করার পর লোকশানের পর এবার আগুও পেঁয়াজ বিক্রি করে ভাল দাম পেয়েছি। ২ একর জমিতে পেঁয়াজের চাষ করেছি। আশাকরি লাভ ভাল হবে। রংপুর কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের জেলা মার্কেটিং অফিসার হাসান সারওয়ার বলেন, দেশের যে সব অঞ্চলে পেয়াজ চায় হয় সে সব অঞ্চলকে গরুত্ব দিয়ে কৃষকদের পেয়াজ চাষে উৎসাহিত করতে হবে।