স্কুলের বনভোজনে না যাওয়ায় ১৮ শিক্ষার্থীকে বাধ্যতামূলক ছাড়পত্র

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: দিনাজপুরের পার্বতীপুরে জমিরহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক বনভোজনে টাকার অভাবে যেতে না পারায় স্কুলের ১৮ শিক্ষার্থীকে বাধ্যতামূলক বিদ্যালয় ত্যাগের ছাড়পত্র দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।
বুধবার জমিরহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এ ছাড়পত্র দেন।
বাধ্যতামূলক ছাড়পত্র পাওয়াদের মধ্যে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ৬ জন, ৭ম শ্রেণির ৩ জন, ৮ম শ্রেণির ৫ জন ও ৯ম শ্রেণীর ৪ জন শিক্ষার্থী রয়েছে।
এ ঘটনায় ৬ষ্ঠ শ্রেণির ভুক্তভোগী পাঁচ শিক্ষার্থী বুধবার বিকেলে পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) মোছা. শাহনাজ মিথুন মুন্নীর কাছে লিখিত অভিযোগ করেছে।
এদিকে, বিষয়টি খতিয়ে দেখার কথা বলেছেন পার্বতীপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. মিরাজুল ইসলাম।
জানা গেছে, ১০ ফেব্রুয়ারি জমিরহাট উচ্চ বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বার্ষিক বনভোজনের আয়োজন করে। এতে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর চাঁদা ধরা হয় ৪শ টাকা। কিন্তু ওই ১৮ শিক্ষার্থী চাঁদার টাকা দিতে না পারায় বনভোজনে অংশ নিলে বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টার দিকে তাদের বাধ্যতামূলক ছাড়পত্র দেওয়া হয়।
বাধ্যতামূলক ছাড়পত্র দেওয়া ১৮ শিক্ষার্থীর মধ্যে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ৫ শিক্ষার্থীর নাম পাওয়া গেছে। তারা হলো- লিটন বাবু (রোল নম্বর-২১), আতিক বাবু (রোল নম্বর-৪৪), মুনকার নাঈম (রোল নম্বর-১৩), রাকিবুল ইসলাম (রোল নম্বর-২) ও রবিউল ইসলাম (রোল নম্বর-২৮)। তাদের সবার বয়স ১২ থেকে ১৩ বছর। বাড়ি উপজেলার রামপুর ইউনিয়নের জমিরহাট পাইকপাড়া গ্রামে।
লিটন বাবুর মা নুরবানু বেগম, রাকিবুল ইসলামের বাবা মমিনুল ইসলাম, আতিক বাবুর বাবা মতিয়ার রহমান, মুনকার নাঈমের বাবা সাইদুল হক ও রবিউল ইসলামের বাবা রশিদুল হক জানান, নির্ধারিত চাঁদার টাকা দিতে না পারায় আমাদের সন্তানেরা স্কুলের বনভোজনে অংশ নিতে পারেনি। এজন্য প্রধান শিক্ষক তাদের বাধ্যতামূলক ছাড়পত্র দিয়েছেন। আমরা প্রধান শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলমের উপযুক্ত বিচার ও অপসারণ দাবি করছি।

পার্বতীপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. মিরাজুল ইসলাম জানান, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলমের সাথে কথা হয়েছে। তার ভাষ্য হলো, ‘গত ১০ ফেব্রুয়ারি বিদ্যালয়ের ২৫০ শিক্ষার্থী বনভোজনে অংশ নেয়। এসময় এলাকার কিছু বখাটে ছেলে পৃথকভাবে একটি বাস ও দুটি মাইক্রো নিয়ে আমাদের সঙ্গে একই স্থানে বনভোজনে যায়। এদের সঙ্গে জমিরহাট উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৮ শিক্ষার্থীও ছিল। কিছু বখাটে ছেলে আমাদের স্কুলের ছাত্রীদের উত্ত্যক্ত করে। বখাটেদের সঙ্গে যাওয়ার অপরাধে তাদের বাধ্যতামূলক ছাড়পত্র দেওয়া হয়।’ আবার এ ঘটনায় ৬ষ্ঠ শ্রেণির ভুক্তভোগী পাঁচ শিক্ষার্থী বুধবার বিকেলে পার্বতীপুর ইউএনও’র কাছে লিখিত অভিযোগ করেছে।
তিনি আরও জানান, বিষয়টি নিয়ে আগামী রবিবার খতিয়ে দেখবো। এরপরে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।