চান্দিনাকে মাদক মুক্ত ঘোষনার কথা বললেও গোপনে চলছে মাদক ব্যবসা

ওসমান গনি: কুমিল্লা জেলার চান্দিনার বিভিন্ন এলাকায় এখনও গোপনে গোপনে চলছে মাদক।পুলিশের চোখ কে ফাঁকি দেওয়ার জন্য মাদক ব্যাবসায়ীরা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করে থাকে। এসব মাদক অতি সহজে হাতের নাগালে পাওয়ার কারনে সকল শ্রেনিপেশার মানুষ মাদকে আসক্ত হয়ে পড়ছে। এতে করে বিশেষ ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সমাজের উঠতি বয়সের যুব সমাজ। সমাজের এক শ্রেনির অসাধু লোকজন এ ভয়াবহ মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। তারা মাদক বিক্রি করে কালো টাকার পাহাড় গড়ে তুলছে আর তাদের কারনে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম তিলে তিলে ধবংস হযে যাচ্ছে। এই মাদক বিক্রির জন্য একটি সংঘবদ্ধ চক্র রয়েছ। এ চক্রের সাথে এমন কিছু মানুষ জড়িত রয়েছে তারা মাদকসহ হাতেনাতে ধরা না পড়লে বুজা বড় কষ্ট যে তারা মাদক ব্যবসায়ী। মাদক সামগ্রী, ইয়াবা, ফেন্সিডিল,গাজা এ এ তিনটি মাদকই চান্দিনাতে মাদক ব্যাবসায়ীদের কারনে সচরাচর হাতের নাগালে অতিসহজে পাওয়া যায়। মাদকের সাথে চলে জুয়াড় আসর। চান্দিনাতে প্রচুর জুয়াড়ি রয়েছে। এসব জুয়াড়িরা আগে বাসাবাড়িতে জুয়া খেললেও এখন তারা পুলিশ প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দেওয়ার জন্য স্থান পরিবর্তন করে নির্জন জায়গা বিশেষ করে ঝোপ জঙ্গলে তাদের সুবিধা মতো স্থানে বসে জুয়াড় আসর। তাদের কে পাহারা দেওয়ার জন্য আসর থেকে কিছু দূরে সাধারণ মানুষের মতো চলাফেরা করে এক বা দুইজন। তাদের কাজ হলো কোন পুলিশের লোকজন দেখলে তারা তাদের সুবিধা মতো স্থানে গিয়ে জুয়াড়িদের কে পুলিশের খবর জানিয়ে দেয়। তারপরও অনেক সময় পুলিশের ঝটিকা অভিযানের সময় অনেক জুয়াড়ি পুলিশের হাতে আটকিয়ে যায়। তখন আটককৃত জুয়াড়িদের ছাড়িয়ে আনার জন্য রয়েছে তাদের একটি গ্রুপ। অনেক সময় বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের ফোনের কারনে পুলিশ প্রশাসন জুয়াড়িদের কে ছাড়তে বাধ্য হয়। পুলিশ আটককৃত জুয়াড়িদে কে কোর্টে চালান দিলেও তারা সেখান থেকে আইনের ফাঁকফোকর দিয়ে বেড়িয়ে আসে। আসার পর আবারও চলে তাদের জুয়া খেলা। ইয়াবা বা বাবা ব্যবসার সাথে সমাজের কিছু গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা জড়িত। এমন ধরনের লোক বাবা ব্যবসার সাথে জড়িত কেউ বিশ্বাস ও করবে না।তাদের ব্যাপারে সমাজের সাধারণ মানুষ কথা বলতেও সাহস পায় না। মাদক ও জুয়াড় কারনে এলাকায় চুরি ডাকাতিও বেড়ে গেছে। চান্দিনার বিভিন্ন এলাকা সিএনজি, গরু, অটোরিকশা সচরাচর চুরি হচ্ছে। চান্দিনা থানা পুলিশ মাদক, জুয়াড়ি, চুরি,ডাকাতি বন্ধ করার জন্য উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় এলাকার সচেতন লোকদের কে নিয়ে সভাসমাবেশ করে যাচ্ছে। তারপরও এসব অপরাধমূলক কাজ বন্ধ করা যাচ্ছে না। এ দিকে চান্দিনার উপজেলার নির্বাহী অফিসারও মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছেন অনবরত। লক্ষ্য একটাই মাদকমুক্ত ও অপরাধমুক্ত চান্দিনা গঠন করা। এ ব্যাপারে চান্দিনা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল ফয়সল বলেন, চান্দিনায় মাদক এখন জিরো টলারেন্স। ইনশাল্লাহ চান্দিনাকে আমি মাদক মুক্ত ঘোষনা করব।

Previous articleসাপাহারে মাদকদ্রব্য সহ আটক ১
Next articleভূঞাপুরে কৃতি শিক্ষার্থী ও প্রেসক্লাবের নতুন কমিটিকে সংবর্ধণা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।