অফিস না করেই বেতন নিচ্ছেন সাঁথিয়ার মৎস্য সম্প্রসারণ কর্মকর্তা

আব্দুদ দাইন: অফিস না করেই ৫মাস ধরে বেতন নেয়ার অভিযোগ উঠেছে পাবনার সাঁথিয়া মৎস্য দপ্তরে কর্মরত মৎস্য সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মাহফুজার রহমানের বিরুদ্ধে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায় এই কর্মকর্তা সেপ্টেম্বর/২০১৯ সালে সাঁথিয়ায় মৎস্য সম্প্রসারন কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন। এর আগে তিনি নওগাঁয় ফার্ম ম্যােেনজার ছিলেন। সাঁথিয়ায় যোগদানের পর থেকে তিনি মাসে দু’একবার অফিসে আসেন। অথচ সারা মােেসর হাজিরা স্বাক্ষর করেন। এ ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি বলেন, তিনি প্রথম শ্রেনীর কর্মকতা তাই হাজিরার প্রয়োজন হয়না। পরক্ষনেই বলেন, উপর মহল ঠিক থাকলে কোন অসুবিধা হয় না। মৎস্য বিভাগে তিনি “হাইকোট” নামে পরিচিত। তার সম্পর্কে মৎস্য বিভােেগর টপ টু বটম সবাই অবগত। তাই তার ব্যাপারে মৎস্য বিভাগে কেউ মুখ খোলেননা। কর্তব্য কাজে তার গাফিলতির কারণে ২৮ জানুয়ারী সাঁথিয়া উপেেজলা পরিষদের মাসিক মিটিং-এ তার বিরুেেদ্ধ রেজুলেশন করে তার কপি মৎস্য বিভাগের মহাপরিচালক, জেলা প্রশাসক পাবনা ও জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বরাবর প্রেরণ করা হয়েছে। মিটিং-এ স্থানীয় সংসদ সদস্য সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপিতি এ্যাড. শামসুল হক উপস্থিত ছিলেন। এ ব্যাপারে সুজানগর উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা আব্দুল হালিম যিনি সাঁথিয়ায় অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করছেন তিনি বলেন বিনা অনুমতিতে কর্মস্থলে অনুপস্থিতির কারণে ২. ১১. ও ২৩ ফেব্রুয়ারী পর পর তিনটি কারণ দর্শানোর নেটিশ দেয়া হয়েছে। তিনি আমাদের জন্য একটা ‘ডিসটার্ব’। এদিকে মৎস্য কর্মকর্তা অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকার কারণে তিনিও অনিয়মিত অফিসে আসেন আর মৎস্য সম্প্রসারণ কর্মকর্তাতো মাসে দু’একবার আসেন। এ অবস্থায় গত ৫মাস ধরে সাঁথিয়ার মৎস্য বিভাগের অবস্থা খুবই নাজুক বলে জানা যায়। এ ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সংশ্লিষ্ট উর্ধতন কর্তৃপক্ষে দৃিিষ্ট আকর্শন করেছেন সাঁথিয়ার মৎস্যচাষী ও মৎস্যজীবীরা.

Previous articleঘরে বসে মাত্র ১০ সেকেন্ডে নিজেই করুন করোনা করোনাভাইরাসের পরীক্ষা!
Next articleশার্শায় পৃথক অভিযানে ৪৫০ বোতল ফেন্সিডিল ও ১৫ কেজি গাঁজা উদ্ধার, আটক ২
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।