উদাসীন পৌর কর্তৃপক্ষ, মশা নিধনে এলাকাবাসী

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: এক দিকে করোনা আতঙ্ক, অন্যদিকে মশার উপদ্রব। এ দুই নিয়ে ফরিদপুরবাসী বর্তমানে দিশেহারা। শীত মৌসুম শেষ হতে না হতেই ফরিদপুরে মশার উপদ্রব ক্রমেই বেড়ে চলেছে। প্রতিটি ওয়ার্ডে মশার আক্রমণে পাগলপ্রায় পৌরবাসী।

পৌর শহরের ঝিলটুলী, পূর্বখাবাসপুর, আলিপুর, কমলাপুর, অম্বিকাপুর অত্যন্ত ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা। আর এ এলাকার বিভিন্ন পুকুর, ডোবা, ড্রেনসহ অর্ধশতাধিক স্থানে এখন মশা তৈরির কারখানায় রূপান্তরিত হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা গেছে, শহরের ঝিলটুলী জুবলি ট্যাংক পুকুরের একপাশে পানি আটকে রেখে গোসলের জন্য ঘাটলা তৈরির কাজ চলছে। অথচ দীর্ঘদিন পানি আটকে রাখার ফলে সেখান মশার লার্ভা থেকে লাখ লাখ মশা জন্ম নিচ্ছে। তা ছাড়া শহরের বিভিন্ন ড্রেনে দীর্ঘদিন পানি আটকে থেকে সেখানেও যেন মশার অভয়ারণ্যে পরিণত হয়েছে।

মশার উপদ্রব বেড়ে যাওয়ার পরও এখন মশা নিধনের জন্য পৌর কর্তৃপক্ষ কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

মিলন হক নামে স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, মশা নিধনের জন্য পৌরসভার লোকজন ব্যাটারিচালিত ভ্যানে করে ফগার মেশিন দিয়ে রাস্তায় ১ দিন ওষুধ দিয়ে চলে গেছে। এভাবে ফাঁকা রাস্তায় ওষুধ দিয়ে তো কোনো লাভ নেই। ওষুধ দিতে হবে ড্রেন, বিভিন্ন পুকুরে। অথচ তা না করে রাস্তা দিয়ে এক দিন ফগার মেশিনের ধোঁয়া দিয়ে চলে গেছে। এভাবে কোন মশা মারা সম্ভব না।

শহরের পূর্বখাবাসপুরের মজনু শেখ বলেন, গত বছরও আমাদের এলাকায় কোনও মশা নিধনের কার্যক্রম চালায়নি পৌরসভা। এবছর মশার কামড়ে বাড়িতে টিকতে পারছি না। কিন্তু এখন পর্যন্ত পৌরসভার লোকজন কোন মশা নিধনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি।

সারা দেশে যেভাবে করোনাভাইরাস ছাড়িয়ে পড়ছে, এরমধ্যে আবার ডেঙ্গু রোগ ছড়িয়ে পড়লে তো এবার নিস্তার নেই। এদিকে মশার হাত থেকে বাঁচতে নিজ উদ্যোগে মশা নিধনের কার্যক্রম চালাচ্ছেন বিভিন্ন ওয়ার্ডের স্বেচ্ছাসেবীরা।

সরেজমিনে দেখা গেছে, পৌর শহরের ১১ নম্বর ওয়ার্ডের আলিপুর এলাকার মানুষদের মশার উপদ্রব থেকে বাঁচাতে নিজ উদ্যোগে মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পুকুর, ডোবা, খাল, ঝোপ-ঝাড়ে মশা নিধনের কার্যক্রম চালাচ্ছে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।

এ স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের নেতা জাবির শফি দিনার জানান, গত বছর ডেঙ্গুর ভয়াবহতা দেখেছি। অনেক মানুষ ডেঙ্গু জ্বরে মারা গেছে। এ বছরও মশার উপদ্রব বেড়ে গেছে আর এই এডিস মশার হাত থেকে রক্ষার্থে বিভিন্ন মহল্লায় গত ৬ মাস ধরে মশা নিধনের কার্যক্রম চালাচ্ছেন।

এ সময় তিনি আরও জানান, তাদের মশা নিধনের এ কার্যক্রম পুরো বর্ষা মৌসুম জুড়েই চলবে।

এদিকে পৌর মেয়র শেখ মাহাতাব আলী মেথু বলেন, আমরা শহরকে পরিষ্কার রাখার জন্য কাজ করছি। এ বিষয়ে জনসচেতনতার জন্য মাইকিং চলছে। তা ছাড়া ফগার মেশিন দিয়ে মশা নিধনের জন্য বিভিন্ন ওয়ার্ডে ওষুধ দেয়া হচ্ছে।

Previous articleজাপান থেকে ফিরেই কোয়ারেন্টাইনে তাহসান
Next articleকরোনায় ইরানে মারা যেতে পারে ৩৫ লাখ মানুষ!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।