নীলফামারীতে ত্রাণের দাবিতে রিক্সা শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ

মহিনুল ইসলাম সুজন: ত্রাণের দাবীতে নীলফামারী শহরের কালিবাড়ী মোড়ে প্রধান সড়ক আড়াই ঘন্টা অবরোধ করে রাখে দুই শতাধিক কর্মহীন রিক্সা শ্রমিক। এ সময় অভুক্ত রিক্সা শ্রমিকেরা খাবারের দাবীতে বিভিন্ন শ্লোগান দেয়। বুধবার সকাল সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত শ্রমিকদের অবরোধের কারনে প্রধান সড়কের দুই পার্শ্বে আটকা পড়ে বিপুল সংখ্যক জরুরী সেবার পরিবহন, নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য বহনকারী গাড়িসহ বিপুল সংখ্যক যানবাহন। একাধিক রিক্সা শ্রমিক অভিযোগ করে বলেন, আমরা সরকারের নির্দেশ মেনে ঘরে আছি। আর ইটাখোলা ও পলাশবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা আইডি কার্ডের ফটোকপি নিয়ে ত্রাণ দিবে দিচ্ছে বলে ঘুড়াচ্ছে। অবরোধের খবর পেয়ে রিক্সা শ্রমিক নেতা আবু তালেব, নীলফামারী পৌরসভার মেয়র দেওয়ান কামাল আহমেদ, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহিদ মাহমুদ, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এলিনা আকতার ঘটনাস্থলে গিয়ে ত্রাণ দেয়ার আশ্বাস দিলে তারা অবরোধ তুলে নেয়। প্রশাসনের প্রকাশিত এক রির্পোটে দেখা যায় সরকারি ভাবে কয়েক দফায় নীলফামারী জেলার জন্য চাল বরাদ্দ আসে ১ হাজার ৩০০শত মেট্রিক টন। এরমধ্যে বিতরন করা হয় ৯০৯ মেট্রিক,মজুদ রয়েছে ৩৯১ মেট্রিকটন। নগদ অর্থ বরাদ্দ আসে ৭২ লাখ। বিতরন করা হয় ৫৩ লাখ ৫৮ হাজার। মজুদ রয়েছে ১৮ লাখ ৪২ হাজার টাকা। শিশু খাদ্যের জন্য বরাদ্দ আসে ১৮ লাখ টাকা। বিতরন করা হয় ১৩ লাখ ৯৯ হাজার ৪শত টাকা। মজুদ রয়েছে ৪ লাখ ৬শত টাকা। বিতরন যোগ্য উপকারভোগীদের সংখ্যা দেখানো হয়েছে ৯০ হাজার ৯শত ও শিশু খাদ্য পেয়েছে ৩ হাজার ৫৫৩ জন।