বাউফলে ৪ মাস আগে নির্মাণ করা নতুন ব্রীজ মেরামতের নামে দরপত্র আহবান!

অতুল পাল: পটুয়াখালীর বাউফলে চার মাস আগে নির্মাণ করা একটি আয়রন ব্রীজকে পুনরায় মেরামতের জন্য দরপত্র (টেন্ডার) আহবান করেছেন বাউফল উপজেলা এলজিইডি অধিদপ্তর। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচীর (এডিপি) আওতায় প্রায় চার লাখ টাকা ব্যয়ে ওই নতুন ব্রীজটি মেরামতের জন্য চলতি মাসের ৭ তারিখ দরপত্র আহবান করা হয়েছে। স্থানীয়ভাবে বিষযটি এখন “টক আব দ্যা টাউনে” পরিণত হয়েছে। সরেজমিনে দেখা গেছে, কালিশুরী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম আবদুর রহমান সরদার (রহমালি) বাড়ির কাছে রনভৈরব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন খালের উপর চারমাস আগে একটি আয়রন ব্রীজ নির্মাণ করা হয়েছিল। ব্রীজের লোহার এঙ্গেলগুলোতে এখনো চকচক করছে রং। ব্রীজটিতে নতুন পাকা স্লাবও দৃশ্যমাণ। স্থানীয় বাসিন্দা আবুল হোসেন ও নাসির উদ্দিন সরদার নামের দুই ব্যক্তি জানান, চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে ব্রীজটির নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। অথচ গত ৭ মে প্রকাশিত দরপত্রে ওই ব্রীজটি মেরামতের জন্য এডিপি-৪এ প্রাকল্পিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৩ লাখ ৯৫ হাজার টাকা। এঘটনায় অনেকইে বিরুপ মন্তব্য করছেন। এবিষয়ে উপজেলা এলজিইডি প্রকৌশলী মো.সুলতান আহমেদের কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রথমে বিষয়টি জানেন না বলে জানান। পরে বলেন, এগুলো উপজেলা পরিষদের সিদ্ধান্ত মোতাবেক দরপত্র আহবান করা হয়। এই প্রকল্পটি গ্রহণের আগে সম্ভাব্যতা যাচাই-বাছাই করেছেন কী না এমন প্রশ্ন করা হলে সে সম্পর্কেও তিনি কিছু বলতে পারেননি। তবে তিনি বলেন, নতুন ব্রীজ পূনরায় মেরামতের জন্য দরপত্র আহবান করা সঠিক পদ্ধতি নয়। যদি এরকমটা হয়ে থাকে তবে ইউএনও’র সাথে আলাপ করে সমাধান করা হবে। একাধিক সূত্র জানায়, উপজেলা চেয়ারম্যান জরুরী ভিত্তিতে ব্রীজ, কালভার্ট সংস্কার বা মেরামত করতে পারেন। পরে সেগুলো সমন্বয় করে নেয়া হয়। তবে এগুলো প্রকল্প কমিটির মাধ্যমে হলে ভাল হয়। দরপত্র আহবানের পর সমন্বয় করা কঠিন হয়ে যায়। বাউফল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. জাকির হোসেন বলেন, এডিপির অর্থায়ণে নতুন নির্মাণ করা ব্রীজ পুনরায় সংস্কার বা মেরামত করার কোন সুযোগ নেই। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।