রংপুরে মাদক ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেটসহ গ্রেপ্তার ৩

জয়নাল আবেদীন: রংপুরে ইয়াবার বিকল্প হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে ব্যথা নাশক ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেট।কিছু অসাধু ওষুধ ব্যবসায়ী দীর্ঘ দিন থেকে এসব মাদকসেবীদের হাতে তুলে দিচ্ছে। র‌্যাব নগরীর পায়রা চত্ত¡র এলাকার আনোয়ারা মেডিসিন মার্কেটে অভিযান চালিয়ে প্রায় ১৩৭৮ পিস অবৈধ মাদকদ্রব্য ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেট সহ ৩ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে। রংপুর র‌্যাব ১৩ এর কোম্পানি কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাফিজুর রহমান সাংবাদিকদের জানান ট্যাপেন্টাডল ট্যাবলেট পূর্বে ব্যাথানাশক ওষুধ হিসেবে ব্যবহার হলেও গত ৮ জুলাই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় এটিকে ‘খ’ শ্রেণীর মাদকদ্রব্য হিসেবে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের তফসিলে যুক্ত করে। এর পরিপ্রেক্ষিতে সকল ওষুধ কোম্পানীর ট্যাপেন্টাডল ওষূধ বাজার থেকে প্রত্যাহার করার আদেশ দিলেও কিছু অসাধু ব্যবসায়ী মাদকসেবীদের নিকট তা চড়া দামে বিক্রয় করছে। ইয়াবা ট্যাবলেটের বিকল্প হিসেবে এবং ইয়াবার তুলনায় কিছুটা সাশ্রয়ী হওয়ায় দ্রুতই এই ট্যাবলেট মাদকসেবীদের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ায় মঙ্গলবার রাতে রংপুর মহানগরীর পায়রা চত্বর মোড়ে আনোয়ারা মেডিসিন মার্কেট এর ৩য় তলায় আয়শা ফার্মেসী নামক ওষুধের দোকানে অভিযান চালায় র‌্যাব। এসময় মাদকদ্রব্য টাপেন্টা ট্যাবলেট (টেপেন্টাডল গ্র“প) ৮শ১৮ টি, সিনটা (টেপেন্টাডল গ্রুপ) ট্যাবলেট ৫শ৬০টি, ৩ টি মোবাইল ফোন, ৫টি সীমকার্ড, একটি মেমোরী কার্ড এবং মাদক বিক্রির নগদ টাকা ১১ হাজার ৩শ৫০ টাকা উদ্ধার করে। এসময় মাদক ব্যবসায়ী নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার ডালিয়া চেয়ারম্যান পাড়ার আনোয়ার আলীর পুত্র মোঃ আব্দুর রহিম ,রংপুরের দেওডোবা পাইকার পাড়া এলাকার আজিজার রহমানের পুত্র মোঃ আসাদ মিয়া ও নগরীর চব্বিশ হাজারী এলাকার আইয়ুব আলীর পুত্র মোঃ ইজাজুল ইসলাম ইজাজ কে গ্রেফতার করে। র‌্যাব আরো জানায়, গ্রেফতারকৃতরা পরস্পর যোগসাজসে আনোয়ারা মেডিসিন মার্কেটে ওষুধ বিক্রির আড়ালে মাদকদ্রব্য ট্যাপেন্টাডল অধিক লাভের আশায় ক্রয়- বিক্রি করতো। গ্রেফতারকৃত মাদক ব্যবসায়ীগনের বিরুদ্ধে থানায় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।