খাজা এনায়েতপুরী (রঃ) আমার মানবতার দীক্ষা : আলোচিত ভিক্ষুক নাজিম উদ্দিন

মারুফা মির্জা: করোনায় বেকার অসহায়দের জন্য দীর্ঘ প্রচেষ্টায় জমানো ১০ হাজার টাকা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ত্রান তহবিলে দিয়ে দেশ জুড়ে আলোচিত শেরপুর জেলার ঝিনাইগাঁতী উপজেলার গান্ধিগাঁও গ্রামের আলোচিত ভিখারী নাজিম উদ্দিন বলেছেন, এখন আমার ৮৫ বছর বয়স চলছে। ছোট বেলায় পাকিস্থান আমলে উপমহাদেশের প্রখ্যাত ওলিয়ে কামেল সিরাজগঞ্জের হজরত খাজা বাবা ইউনুস আলী এনায়েতপুরী (রঃ) এর মুরিদ হই। তার দরবারে প্রতিবছর বাৎসরিক ধর্মীয় মহাসমাবেশ ওরশ শরীফে গিয়ে বয়ান শুনেছি। তিনি সেখানে আসা আমাদের মত ভারত-বাংলার লাখো ভক্ত মুরিদানদের উদ্দেশ্যে বলতেন, ৫ ওয়াক্ত নামাজ আদায়ের পাশাপাশি ইসলামের নীতি আদর্শ অনুসারে জীবন গড়তে হবে। যার যত টুকু স্বামর্থ আছে তাই নিয়েই অসহায়দের পাশে দাঁড়াতে হবে। মনে রাখতে হবে, মানবতার দর্শনই হচ্ছে প্রকৃত ধর্ম। পাশাপাশি একে অপরকে সম্মান যেমন করতে হবে। তেমনিই বিপদে বিপন্ন মানুষের পাশে বন্ধুর মত দাঁড়াতে হবে। তবেই ইহকাল ও পরকালে শান্তি মিলবে। আমি সেই অনুসারে খাজা পীর এনায়েতপুরী (রঃ) আদর্শকে অনুসরন করে জীবন গড়ছি। সেরকম সম্পদ না থাকলেও মানুষের পাশে দাঁড়াতে চেষ্টা করি। তাই ঘর করবার জন্য ভিক্ষে করে গোছানো ১০ হাজার টাকা আমি স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ত্রান তহবিলে জমা দিয়েছি। এ শিক্ষা আর দীক্ষা যাই বলেন, আমি খাজা এনায়েতপুরী (রঃ) কাছ থেকে পেয়েছি। তিনি মঙ্গলবার সকালে খাজা এনায়েতপুরী (রঃ) এর বড় সাহেবজাদা প্রথম গদ্দিনশীন হুজুর পাক হযরত খাজা আলহাজ্ব হাসেম উদ্দিন (রঃ) এর ওফাত দিবস উপলক্ষে বিশ্ব শান্তি মঞ্জিল সিরাজগঞ্জের খাজা বাবা ইউনুস আলী এনায়েতপুরী (রঃ) মাজার শরীফ জিয়ারতে এসে স্থানীয় গনমাধ্যম কর্মীদের সাথে আলাপ কালে এসব কথা বলেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী ও তার পরিবারের জন্য দোয়া কামনা করে বলেন, মানবতার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথিবীর একজন দয়ালু নেত্রী। আমার থাকার পাকা বাড়ি, গাড়ী, দোকান সব তিনি করে দিয়েছেন। মাসে-মাসে ভাতাও দিচ্ছেন। আমার আর ভিক্ষে করে খেতে হচ্ছেনা। যত দিন বেঁচে আছি তার আর দেশের মানুষের জন্য দোয়া করে যাবো। দয়াল মুর্শিদ খাজা এনায়েতপুরী (রঃ) প্রতিও কৃতজ্ঞ আমি। তার দেখানো আলোর পথ অনুসরন করে আমি এখন দেশ জুড়ে প্রশংসিত। প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমি চির ঋনী। এখন আমার শেষ দাবী একটাই। শুধু তার সাথে দেখা করে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা। গত সোমবার বিকেলে শেরপুর থেকে এলাকার বেশ কয়েকজন অনুসারীকে সাথে নিয়ে মানবতাবাদী ভিক্ষুক নাজিম উদ্দিন এনায়েতপুর পাক দরবার শরীফে আসেন। সেখানে খাজা ইউনুস আলী এনায়েতপুরী (রঃ) মাজার জিয়ারত, দোয়া কামনা ও দরবার শরীফ জামে মসজিদে নামাজ আদায় করে গদ্দিনশীন পীর হযরত খাজা কামাল উদ্দিন নুহু মিয়ার সাথে দেখা করে দোয়া নিয়ে রাত্রী যাপন করেন। এরপর মঙ্গলবার সকালে ফজর নামাজ আদায় ও মাজার জিয়ারত করেছেন। আরো এক/দুদিন দরবারে থাকবেন বলে নাজিম উদ্দিন জানিয়েছেন। তিনি ১০/১২ বছর বয়স থেকে প্রায় প্রতিবার ওরশ শরীফের সময় দরবারে এসে খেদমত করে থাকেন। নাজিম উদ্দিনের বিষয়ে এনায়েতপুর পাক দরবার শরীফের পেশ ইমাম আলহাজ্ব মাওঃ আব্দুল আওয়াল জানান, আমাদের দরবারের অধিকাংশ অনুসারী মানব সেবায় নিয়োজিত। নাজিম উদ্দিন তেমনই দরদী এক প্রাণ। তার আদর্শিক কর্মকান্ড আমাদের উৎসাহিত করেছে। এদিকে এনায়েতপুর মাজার শরীফে আসার খবর পেয়ে সামাজিক সেবা সংগঠন সিরাজগঞ্জ একুশে ফোরামের সদস্যরা নাজিম উদ্দিনকে শুভেচ্ছা জানাতে যান। সেখানে তারা বিভিন্ন উপহার সামগ্রী তুলে দেন তার হাতে।