আব্দুল মান্নান, তার অপহ্রত স্ত্রী সাজেদা আক্তার ও এক বছরের শিশু কন্যা

তাবারক হোসেন আজাদ: সাজেদা বেগম (১৮)। ৬ বছর আগে তাকে দ্বিতীয় বিয়ে করেন হোটেলের মিষ্টি কারিগর আবদুল মান্নান-(৩৫)। প্রায় সময় যৌতুকের জন্য শারিরীক নির্যাতন করা হত সাজেদাকে। তাদের ঘরে এক কন্যা সন্তান (১) রয়েছে । তারপরও নির্যাতন থেমে ছিলো না । একদিন মা-বাবা বাসায় গিয়ে দেখেন তাদের মেয়ে সাজেদা ও শিশু কন্যা নেই। জামাতা আব্দুল মান্নানের কাছে জানতে চাইলে সে উত্তর দিতে পারেনি। অবশেষে সাজেদার মা হোসনেয়ারা বেগম (৫০) বাদী হয়ে জামাতা আবদুল মান্নানের বিরুদ্ধে আদালতে মেয়ে ও নাতিনকে হত্যা ও গুমের অভিযোগে মামলা করেন। ঘটনাটি ঘটেছে গত শুক্রবার (৩ জুলাই) রাতে লক্ষ্মীপুরের রায়পুর শহরের পীর ফজলুল্লাহ সড়কের জ্বীনের মসজিদ সংলগ্ন একটি ভাড়া বাসায়।

মঙ্গলবার (০২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে মামলার বাদী হোসনেয়ারা বেগম জানান, ২০১৪ সালের ৪ আগষ্ট তার কুমারি মেয়ে সাজেদা বেগম সাজুকে দ্বিতীয়-বিযে করেন চাঁদপুরের শাহরাস্তির উনকিলা গ্রামের সহিদ উল্যার ছেলে রায়পুর শাহি হোটেলের মিষ্টি কারিগর আবদুল মান্নান। তাদের সংসারে এক বছরের কন্যা সন্তান রয়েছে। বিয়ের পর মান্নান যৌতুকের জন্য সাজেদাকে মারধর করতো। ধারদেনা করে কিছু টাকা দিয়েছি। গত ৩ জুলাই বাসায় গিয়ে দেখি সাজেদা ও তার কন্যা নেই। মান্নানের কাছে জানতে চাইলে সে কোন উত্তর দিতে পারেনি। বাধ্য হয়ে মেয়ে ও নাতিনকে হত্যা ও গুম করা হয়েছে মর্মে গত ১৬ আগষ্ট বাদী হয়ে আদালতে মান্নানকে আসামী করে মামলা করেছি।যা তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে রায়পুর থানার ওসিকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালতের বিচারক।।।

এঘটনায় অভিযুক্ত আবদুল মান্নান বলেন, প্রথম স্ত্রী আমার বিরুদ্ধে তিনটি মামলা দিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ করে। তখন বাধ্য হয়ে সাজেদাকে দ্বিতীয় বিয়ে করি। বুঝতে পারিনি এ বিয়ে আমার জীবন বিষাদে করে তুলেছে সাজেদা, তার মা ও বাবা।। সাজেদা দুইবার বাসা থেকে চরি করে উধাও হয়ে যায়। তিন মাস পর পুলিশের মাধ্যমে খুঁজে পাই। গোপনে আমাকে তালাক দিয়ে আমার সাথে সংসারও করে এবং নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে একটি হলফ নামায় তার শিশু কন্যাকেনা দাবি দিয়ে অচেনা লোককে দিয়ে দেয়। তারা আমার শিশু কন্যাকে এনে দিচ্ছে না। গত ২৯ জুলাই আমার বাসা থেকে নগদ ৮০ হাজার টাকা, স্বর্ণালংকার চুরিসহ প্রায় ৪ লক্ষ টাকা আত্নসাতের দায়ে লক্ষ্মীপুর আদালতে মামলা করেছি। সেই মামলাটি থানার পুলিশের এসআই তদন্ত করছেন।

রায়পুর থানার ওসি আবদুল জলিল বলেন, মেয়ে ও তার শিশু কন্যাকে হত্যা ও গুমের দায়ের করা হোসনেয়ারা বেগমের মামলাটি এবং স্ত্রীসহ পাঁচ জনের বিরুদ্ধে আবদুল মান্নানের দাযের করা চুরি মামলাটি তদন্ত করে দ্রুত আদালতে পাঠানোর জন্য সংশ্ললিষ্ট-কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।