সাঁথিয়ায় গৃহ শিক্ষকের হাত ধরে প্রবাসীর স্ত্রী ঘর ছাড়া, টাকা নিয়ে প্রেমিক পলাতক

আব্দুদ দাইন: পাবনার সাঁথিয়ায় পরকীয়া প্রেমে পড়ে প্রবাসীর স্ত্রী গৃহ শিক্ষকের সাথে উধাও হয়েছে। বিয়ের প্রলোভনে নগদ নয় লক্ষ টাকাসহ সর্বস্ব হাতিয়ে নিয়ে ঢাকায় প্রবাসীর স্ত্রীকে ফেলে পালালো গৃহ শিক্ষক মিজান। ঘটনাটি এলাকায় চাঞ্চাল্যকর সৃষ্টি করেছে। অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, উপজেলার ভুলবাড়িয়া ইউনিয়নের গনেশপুর গ্রামের চাঁদ আলীর (দলু) মেয়ে রোজিনা খাতুনের প্রায় ৯ বছর আগে সুজানগর উপজেলার ঘোড়াদহ গ্রামে নজরুলের সাথে বিয়ে হয়। সাংসারিক সুখের আশায় সাড়ে ৫ বছর আগে স্ত্রী ও কন্যা রেখে বিদেশ যান নজরুল। কয়েক মাস পর স্বামীর বাড়ী থেকে বাবার বাড়ী গনেশপুরে আসে রোজিনা। রোজিনা তার মেয়েকে পার্শ্ববতী একটি কিন্ডারগার্টেনে ভর্তি করে। ওই স্কুলের শিক্ষক ও কৃষ্ণপুর গ্রামের মোসলেম উদ্দিনের ছেলে মিজানুর রহমান মিজানকে মেয়ের গৃহ শিক্ষক হিসেবে পড়ানোর দায়িত্ব দেন। মেয়ের শিক্ষক মিজানের সাথে প্রেমে জড়িয়ে পড়ে প্রবাসীর স্ত্রী রোজিনা। দুই বছর ধরে তাদের প্রেম চলতে থাকে। প্রেমের কাহিনী জানাজানি হলে মিজানকে বিয়ের জন্য চাপ দেয় প্রবাসীর স্ত্রী। বিয়ের আশ্বাস দিয়ে ৪ আগষ্ট রোজিনাকে মিজান গাজীপুর নিয়ে যায়। সেখানে ঘর ভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করে দু’জন। বিয়ের জন্য চাপ দিলে টালবাহানার এক পর্যায়ে গত ২৯ আগষ্ট গাজীপুরে মিজানের ভগ্নিপতি শফিকুলের বাসায় প্রেমিকাকে রেখে প্রেমিক পালিয়ে যায়। কোন উপায়ান্তর না পেয়ে গত ২ সেপ্টেম্বর রাত ১১টার দিকে রোজিনা নানার বাড়ী সাঁথিয়ার আতাইকুলা ইউনিয়নের রঘুনাথপুরে আসে। ৩ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার রাতে রোজিনা বাদী হয়ে আতাইকুলা থানায় মিজান ও তার বোন ভগ্নিপতির নামে অভিযোগ দায়ের করেন। রোজিনা জানান, বিভিন্ন সময়ে স্বামীর পাঠানো প্রায় সাড়ে নয় লক্ষ টাকা মিজানকে দিয়েও বিয়ের নামে প্রতারনা করে পালিয়েছে সে। টাকা ছাড়াও অনেক সময় স্বর্ণালংকরসহ বিভিন্ন মূল্যবান উপহার তাকে দিয়েছে। এ বিষয়ে আতাইকুলা থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) কামরুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি পরকীয়া। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।