নোয়াখালীতে পৃথক দুর্ঘটনায় মা-মেয়েসহ চার জনের মৃত্যু

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নোয়াখালীর হাতিয়া ও সুবর্ণচর উপজেলায় পানিতে ডুবে মা-মেয়েসহ তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। সুবর্ণচরে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মারা গেছেন একজন।

শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা, রাত ৮টা ও রাত ৯টার দিকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়। তারা হলেন: হাতিয়া উপজেলার জাহাজমারা ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ম্যাকপার্শন গ্রামের সোহরাব হোসেনের স্ত্রী আকলিমা আক্তার (২৩), আকলিমার মেয়ে মরিয়ম আক্তার সালমা (২), সুবর্ণচর উপজেলার চরবাটা ইউনিয়নের চরমজিদ গ্রাম ভূঁইয়ারহাট এলাকার দিলাল মিয়ার মেয়ে লাইবা জাহান (৫) ও একই ইউনিয়নের হাজীপুর গ্রামের নান্টু সূত্র ধরের ছেলে দেবু সূত্র ধর (৩৫)।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার দুপুরে জাহাজমারা ৮নং ওয়ার্ডের সোহরাবের স্ত্রী তার শিশু সন্তান সালমাকে নিয়ে পাশের বাড়ির একটি পুকুরে গোসল করতে যান। এরপর থেকে তারা দুই জন আর বাড়ি ফিরে আসেনি। পরিবারের লোকজন পাশের বাড়িসহ বিভিন্ন জায়গায় খুঁজে তাদের কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। সন্ধ্যার দিকে ওই পুকুরের থেকে আকলিমার মরদেহ ভাসতে দেখে একজন প্রতিবেশী। পরে স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় তার মরদেহ উদ্ধার করে। এসময় সালমাও নিখোঁজ ছিল। শিশুটির মরদেহ পুকুরে থাকতে পারে এমন সন্দেহে এলাকার লোকজন পুকুরে জাল ফেলেন। রাত ৮টার দিকে তাদের জালে সালমার মরদেহ আটকা পড়ে।

হাতিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল খায়ের বলেন, মা-মেয়ের মরদেহ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে পরিবারের লোকজন বলছে পানিতে ডুবে তাদের মৃত্যু হয়েছে। অভিযোগ না থাকলে ময়নাতদন্ত ছাড়া মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

এদিকে জেলার সুবর্ণচর উপজেলার চরবাটা ইউনিয়নের চরমজিদ গ্রামের ভূঁইয়ারহাট বাজারের পাশ্ববর্তী দিলালের মেয়ে লাইবা জাহান বিকালে বাড়ির আঙিনায় খেলছিল। সন্ধ্যার দিকে তাকে ঘরে ফিরতে না দেখে তার বাবা মা বিভিন্ন স্থানে খোজাখুঁজি শুরু করে। পরে রাত ৯টার দিকে তাদের বাড়ির পুকুরের মধ্যে লাইবা জাহানের মরদেহ ভাসতে দেখে পরিবারের লোকজন উদ্ধার করে।

অপরদিকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সুবর্ণচর উপজেলার পূর্ব চরবাটা ইউনিয়নে হাজীপুর গ্রামের বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দেবু সূত্র ধর (৩৫) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তিনি পেশায় একজন কাঠমিস্ত্রী ছিলেন।

স্থানীয়রা জানান, সন্ধ্যা ৭টার দিকে তার বাড়ির বিদ্যুতের লাইনে সমস্যা দেখা দেয়। সেটি মেরামত করতে বাড়ির পাশের বিদ্যুতের খুঁটিতে (খাম) উঠে যায় দেবু। এর কিছুক্ষণ পর খুঁটির উপর থেকে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মাটিতে পড়ে যায় সে। পরিবারের লোকজন আহত অবস্থায় দেবুকে উদ্ধার করে সুবর্ণচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।