সন্তান হত্যার দায়ে মা ও তার দুই পরকিয়া প্রেমিকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বরিশালে ১১ বছরের শিশু সন্তান র‌নি‌কে হত্যার দায়ে মা কনা বেগম ও তার দুই পরোকিয়া প্রেমিককে যাবজ্জীবন কারাদনণ্ড দিয়েছে আদালত।

আজ সোমবার ব‌রিশা‌লের জননিরাপত্তা বিঘ্নকারী অপরাধ দমন ট্রাইবুনালের বিচারক কে,এম, শহীদ আহম্মেদ এই রায় ঘোষনা করেন। আদালতের বিশেষ পিপি অ্যাডভোকেট লস্কর নুরুল হক এ রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

হত্যাকা‌ণ্ডের ঘটনায় দন্ডপ্রাপ্তরা হলো, নিহত শিশু রনির মা কনা বেগম ও তার দুই পরকিয়া প্রেমিক রুহুল আমিন নলি ও শাহীন নলি। এর মধ্যে শাহীন নলি দণ্ডপ্রাপ্ত কনা বেগমের আপন চাচাতো ভাই এবং রুহুল আমিন নলি দণ্ডপ্রাপ্ত শাহীন নলির বন্ধু ও কাজীর হাট একতা ডিগ্রি কলেজের ছাত্র ছিল।

দণ্ডপ্রাপ্তরা সকলেই বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জের কাজীর হাট থানাধীন পশ্চিম রতনপুর এলাকার বাসিন্দা। মামলার রায় ঘোষনার সময় আসামীদের মধ্যে কনা বেগম ও রুহুল আমিন নলি উপস্থিত ছিলেন।

মামলা সূত্রে জানা যায়, কনা বেগমের স্বামী ও মামলার বাদি লকিতুল্লাহ দুয়ারি চট্রগ্রামের চাকতাই এলাকায় দিন মজুরের কাজ করতেন। তার অবর্তমানে কনা বেগমের সাথে শাহীন নলির পরোকিয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। যার সূত্র ধরে রুহুল আমিন নলির সাথেও অবৈধ সম্পর্ক গড়ে ওঠে কনা বেগমের। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৩ সালের ২১ ফেব্রুয়ারী শাহীন নলি ও রুহুল আমিন নলি পশ্চিম রতনপুর এলাকায় কনা বেগমের বাড়িতে যায় এবং দৈহিক মিলনে লিপ্ত হয়।

এ সময় কনা বেগমের ছেলে রনি তা দেখে ফেলে এবং তার বাবার কাছে বলে দেওয়ার কথা বলে। তখন ৩ জনই পরস্পর যোগ সাজসে রনিকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে এবং সাপের কামড়ে রনির মৃত্যু হয়েছে বলে প্রচার চালায় কনা বেগম। কিন্তু বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যানের সন্দেহ হলে তিনি থানা পুলিশকে খবর দেন।

এ ঘটনায় নিহত রনির বাবা লতিকুল্লাহ দুয়ারী পরের দিন অজ্ঞাতনামাদের আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। ২০১৪ সালের ২৭ মার্চ রুহুল আমীন নলিকে গ্রেফতার করা হলে তিনি আদালতে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দেন।

মামলায় তদন্ত শেষে জেলা ডিবির এসআই মোঃ নজরুল ইসলাম মৃধা দণ্ডপ্রাপ্ত ৩ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশীট দাখিল করে। আদালত ২৪ জনের সাক্ষ্য গ্রহন শেষে আজ এ রায় ঘোষণা করেন।