গভীররাতে মেয়ের ঘরে বখাটে, বাধা দেয়ায় ব্যাংক কর্মচারী বাবাকে কুপিয়ে জখম

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নড়াইলে নবম শ্রেণীর ছাত্রীর বাবার সাহসিকতায় শ্লীলতাহানির হাত থেকে রক্ষা পেল এক স্কুলছাত্রী। গভীররাতে মেয়ের ঘরে হানা দেয়া গৃহশিক্ষক এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী মিঠু বিশ্বাস। তাকে প্রতিহত করতে গিয়ে মিঠুর ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আহত হন শিক্ষার্থীর বাবা কামরুজ্জামান।

এ সময় মিঠুকে স্থানীয়রা আটক করে পুলিশে হাতে তুলে দেন। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। রোববার রাত ২টার দিকে সদর উপজেলার তুলারামপুর গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটে। একই উপজেলার সিঙ্গিয়া গ্রামের বাসিন্দা মিঠু এর আগেও তার প্রেমের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় নিজ গ্রামের এক ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী ও তার বোন এবং দাদীকে কুপিয়ে মারাত্মকভাবে আহত করেন।
পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, সম্প্রতি মিঠু নিজের কুমতলব হাসিল করতে নিজ এলাকার দূরবর্তী তুলরামপুরে রাজ ছদ্মনামে ব্যাংক কর্মচারী কামরুজ্জামানের নবম শ্রেণী পড়ুয়া মেয়ে সায়মার জন্য গৃহশিক্ষক হিসেবে নিযুক্ত হন। সেখানে এক পর্যায়ে সে সায়মাকে নানা কু-প্রস্তাব দিতে শুরু করে। বিষয়টি সায়মা বাবাকে জানালে মিঠুকে গৃহশিক্ষক থেকে বাদ দেয়া হয়।
এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মিঠু শিক্ষার্থীর বাবার মোবাইলফোনে নানা হুমকিধামকির একপর্যায়ে সোমবার গভীর রাতে কৌশলে সায়মার ঘরে প্রবেশ করে তার শ্লীলতাহানির চেষ্টা চালায়। এসময় সায়মার চিৎকারে কামরুজ্জমান মেয়েকে রক্ষা করতে ছুটে গেলে মিঠু নিজের হাতে থাকা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কামরুজ্জমানকে কুপিয়ে জখম করে। এসময় তাদের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে মিঠুকে আটক করে পুলিশে দেয়। এ ঘটনায় সোমবার দুপুরে নড়াইল সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।
এর আগে, গত বছর ১৫মার্চ মিঠু দলবল নিয়ে সিঙ্গিয়া গ্রামের ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী রাবেয়াকে বাড়ি থেকে তুলে আনতে গিয়ে রাবেয়ার পরিবারের বাধারমুখে ব্যর্থ হয়ে রাবেয়া ও তার বোন তৃতীয় শ্রেণীর ছাত্রী হেনা ও তাদের দাদী জাহানারাকে এলোপাথাড়ি ধারালো অস্ত্র দিয়ে নির্মমভাবে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। এ ঘটনায় সে সময় এলাকাবাসী রাস্তায় নেমে মিঠু ওতার সাঙ্গপাঙ্গর বিচার দাবিতে নানা কর্মসূচি পালন করেন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মাসুদ রানা বলেন, মিঠুর বিরুদ্ধে তিন নারীকে হত্যা চেষ্টাসহ সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের একাধিক মামলা রয়েছে। এ ঘটনায় সোমবার দুপুরে নড়াইল সদর থানায় তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে।