৩০ অক্টোবর পুকুরে ডুবে নিহত দুই মিশু শিহাব (১৮ মাস) ও আবদুল্লাহ (২)

তাবারক হোসেন আজাদ: ইমা ও প্রেমা । তারা দুই বোন। উভয়ের স্বামী থাকেন প্রবাসে। বাবার অনুরোধে গত ৩০ অক্টোবর বিকালে সন্তানসহ দুই বোনই রায়পুর শহরের দেনায়েতপুর গ্রামে তাদের বাবার বাড়ীতে বেড়াতে আসেন। ৩১ অক্টোবর সকালে ১৮ মাস ও দুই বছরের শিশু দুই খালাত ভাই বাড়ীর পাশের জলাশয়ে পরে নিহত হয়। এতে দুই শিশু সন্তানকে হারিয়ে তারা দুই বোন নির্বাক হয়ে পড়েছেন বলে তাদের বাবা আবদুল কাদের তা জানিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। ্য়ঁড়ঃ;সচেতন না হওয়ায় লক্ষীপুরের রায়পুরে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর হার বেড়েই চলেছে । কিন্তু-এটি ‘নীরব মহামারি’ রূপ ধারণ করে থাকলেও বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সরকারি বা বেসরকারি যেসব উদ্যোগ রয়েছে তা এর প্রতিকার ও প্রতিরোধে যথেষ্ট নয়।্য়ঁড়ঃ; সম্প্রতি-রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সুুত্রে জানাযায়, চলতি বছরের গত ১০ মাসে পুকুরে ডুবে আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ১৩৩ শিশু। তার মধ্য ৪৫ জন মারা যান। ৩/৪ দিন পরপর পুকুরে পড়ে মারা যাওয়া শিশু হাসপাতালে আসছে। বেশি মুমুর্ষ শিশুদের সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়ে থাকে। অভিভাবকদের অ-সচেতনতার কারনে শিশুদের মৃত্যু হচ্ছে। তাদের আরো সতর্ক থাকতে হবে। উপজেলার উত্তর চরবংশী, দক্ষিন চরবংশী, উত্তর চরআবাবিল, দক্ষিন চরআবাবিল, চরমোহনা ও বামনী ইউপিতে বেশি পরিবারের শিশুরা পানিতে ডুবে মারা যাচ্ছে। উল্লেখ্য, গত ২ নভেম্বর রায়পুর শহরের খাজুরতলা নামক স্থানে দিনমজুর শাহজাহানের ছেলে মোঃ আহাদ (২) পুকুরে ডুবে মারা যায়। ৪ নভেম্বর চরমোহনা গ্রামের কৃষক তৈয়ব আলীর ছেলে আমির হোসেন (৪) বাড়ীর পাশে পুকুরে ডুবে মারা যায়। ১৬ সেপ্টেম্বর চরকাচিয়া গ্রামের কৃষক আইয়ুব আলীর ছেলে মোঃ হাসান (৪) পুকুরে ডুবে মারা যায়। ১৪ অক্টোবর শাহচর গ্রামের দিনমজুর শাহজাহানের মেয়ে সুমাইয়া (৫) তার চাচাত বোন কামাল হোসেনের মেয়ে সুমী (৪) এক সঙ্গে পানিতে ডুবে মারা যায়। ১৯ অক্টোবর চরবংশী ইউপির চর ঘাসিয়া গ্রামের দিনমজুর জাকির হোসেনের ছেলে সিফাত (২) বাড়ীর পুকুরে ডুবে মারা যায়। গত ১০ মাসে ১৩৩ জন শিশু হাসপাতালে ভর্তির পর ৪৫ শিশু মারা যায়। শিশুদের পানিতে ডুবে মৃত্যু ঠেকাতে ২০১৫ সালের এপ্রিলে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের সাঁতার প্রশিক্ষণ ও অনুশীলনের ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছিলো সরকার। একইসঙ্গে সব এলাকায় জলাশয়কে স্বাস্থ্যসম্মত ও সাঁতার উপযোগী করে তুলতে বলা হয়েছিল। কিন্তু সরকারের সেই উদ্যোগ পরিপত্র জারির মধ্যে সীমাবদ্ধ রয়েছে। সবচেয়ে আলোচিত বড় মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে-গত ৩০ অক্টোবর রায়পুর পৌরসভার দেনায়েতপুর এলাকায়। নানার বাড়ীতে বেড়াতে এসে দুই বোনের দুই ছেলে পুকুরে ডুবে মারা যায়। এর মধ্যে নিহত শিহাব (১৮ মাস) ও আবদুল্লাহ (২) দুই খালাত ভাই। তাদের নানা. আবদুল কাদের বলেন, “আমার দুই শিশু নাতি সাঁতার না জানায় পুকুরে ডুবে মারা গেছে। তারা বলেছিল সাঁতার শেখাতে। সেটা করলে আজ হয়ত আমার সন্তানেরা বেঁচে থাকত।” এবং ২৬ জুন হায়দরগঞ্জ শহরের সাইয়্যেদ মঞ্জিলের ভিতরে পুকুরে শিশু ছেলে আরিয়া (৬) ও তার চাচাতো ভাই ফায়সালের ছেলে ফাইয়াজ হোসেন (৭) সাঁতার না জানার কারনে বাড়ীর ভিতরে পুকুরে এক সঙ্গে-ডুবে মারা যায়। হায়দরগঞ্জ উপশহরের বিশিষ্ট সমাজ সেবক আলহ্ধসঢ়;বাজ তাহের ইজ্জুদ্দিন বলেন, আমাদের অভিভাবকরা সচেতন না হওয়ায় পুকুরে পড়ে শিশুরা মারা যাচ্ছে। একসঙ্গে দুই শিশু সন্তানকে হারিয়ে আমিও নীজেকে অপরাধি ও অসহায় বোধ করছি। কৃষক আইয়ুব আলী বলেন, আঁর এক খান আদরের মানিককে (সন্তান) হারাই আঁই কি যেন হারাই হালাইছি। কোন কিছুতেই বালা লাগে না। গত দুই বছর ওরে ছাড়া ভাত খাই নাই। আঁর মানিকরে আল্লাহ যেন বেহেস্তে-বালা রাহে। রায়পুর এলএম পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহবুবুর রহমান এ প্রতিবেদককে বলেন, “সন্তানকে সাঁতার শেখাতে ব্যক্তি উদ্যোগের কোনও বিকল্প নেই।”অভিভাবকদের উধাসিনতার কারনে শিশুরা পুকুরে ডুবে মারা যাচ্ছে। সামাজিক অবস্থায় ছেলেদের ‍উন্মুক্ত পরিবেশে সাঁতার শেখানো গেলেও মেয়েদের ক্ষেত্রে সেটা সম্ভব নয় বলেও জানান।” রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাক্তার বাহারুল আলম বলেন, সাঁতার না জানা, পানিতে নেমে ভয় পাওয়া, অভিভাবক ছাড়া শিশুরা সাঁতার কাটা, অ্যালকোহল খাওয়া, মৃগীরোগ ,হৃদরোগ ও আত্বহত্যাই পুকুরে ডুবে শিশুদের মৃত্যুর কারন। এর থেকে প্রতিকারের উপায় ডুবন্ত রাস্তায় না চলা, সাঁতার এবং নৌকা চালানোর সময় অ্যালকোহল না খাওয়া ও সাঁতার শিখতে হবে। আর তখনই শিশুরা পুকুরে পড়লেও মৃত্যু থেকে বেঁচে যাবে।