বাংলাদেশ প্রতিবেদক: টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে নিখোঁজের তিন দিন পর নুরুল ইসলাম (৪৫) নামে এক ঘোড়ার গাড়ি চালকের লাশ উদ্ধার করেছে ঘাটাইল থানার পুলিশ।

সোমবার (১৮ জানুয়ারি) রাতে উপজেলার পাহাড়িয়া এলাকার লক্ষিন্দরে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত নুরুল ইসলাম উপজেলার সংগ্রামপুর ইউনিয়নের ছনখোলা গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে।

এ ঘটনায় নিহতের ছেলে আনিছুর রহমান বাদী হয়ে ঘাটাইল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। এদিকে, ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ।

এজাহার সূত্রে জানা যায়, শনিবার (১৬ জানুয়ারি) উপজেলায় কুড়ালিয়া বাইদ এলাকায় ঘোড়দৌড় দেখতে গিয়ে নিখোঁজ হন নুরুল। পরদিন তার ছেলে আনিছুর রহমান থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ উপজেলার সুন্দইল গ্রামের জামাল হোসেন (৪৫), তার মেয়ের জামাই দেওজানা গ্রামের ফজর আলী (২৪) এবং একই গ্রামের অটোচালক শাহ আলমকে (২২) আটক করে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আসাদুল ইসলাম জানান, শনিবার (১৬ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে আসামিরা নুরুল ইসলামকে দেওজানা বাজার থেকে জোরপূর্বক ব্যাটারি চালিত অটোরিকশায় তুলে নেয়। পরে তারা অটোতেই শ্বাসরোধে তাকে হত্যা করে। মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর তারা নুরুল ইসলামের লাশ উপজেলার লক্ষিন্দর এলাকায় সাগরদিঘী-গারো বাজার পাকা সড়কের পাশে জঙ্গলে ফেলে যায়। পরে তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গত সোমবার রাতে তার হাত-পা বাধা লাশ উদ্ধার করা হয়।

লক্ষিন্দর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য বাহাদুর মিয়া জানায়, নুরুল ইসলামের সঙ্গে জামাল হোসেনের আত্মীয়তার সম্পর্ক রয়েছে। জামাল হোসেন গ্রীস প্রবাসী। তার স্ত্রীর সাথে নুরুল ইসলামের পরকীয়া থাকার বিষয়টি এলাকায় আলোচনায় আছে। সে কারণে এ খুনের ঘটনা ঘটতে পারে।

ঘাটাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

Previous article৫ম ধাপের পৌরসভা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা
Next articleফের পপির বিয়ের গুঞ্জন!
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।