আহাম্মদ কবির: সুনামগঞ্জের তাহিরপুর সীমান্ত নদী যাদুকাটায় নদীর তীরকেটে বালু উত্তোলনের ছবি তুলার চেষ্টায়,তাহিরপুর উপজেলা কর্মরত সাংবাদিক দৈনিক সংবাদ এর উপজেলা প্রতিনিধি কামাল হোসেন নির্যাতনের ঘটায় ৫জনের নাম উল্লেখ সহ মোট ১১জনকে আসামি করে থানায় মামলা,পুলিশের অভিযানে আটক ৪জন।

আটককৃত ব্যাক্তিরা হলেন ঘাগটিয়া গ্রামের শামছু মিয়ার ছেলে ফয়সাল আহমদ(১৯),একই গ্রামের শাহনুর মিয়ার ছেলে আনারুল ইসলাম(২০),ছবিরুল ইসলামের ছেলে ছেলে তাহির হোসেন (২০),গোলাম হোসেন এর ছেলে মাশবিরুল ইসলাম (২১)।

তাহিরপুর থানার এস,আই দীপঙ্কর বিশ্বাস বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন তাহিরপুর সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ বাবুল আখতারের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে উপজেলার ঘাগটিয়া গ্রাম সহ বিভিন্ন স্থান হতে তাদের আটক করা হয়।

উল্লেখ্য যে প্রতিদিনের ন্যায় ১,ফেব্রুয়ারি সোমবার নদীর তীর কেটে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করছে বালু খেকোর একটি চক্র,এমন তথ্যমতে সাংবাদিক কামাল হোসেন ঘটনাস্থলে গিয়ে ছবি তুলার চেষ্টা করলে ঘাগটিয়া গ্রামের রইস মিয়া,দ্বীন ইসলাম ও মাহমুদুলের নেতৃত্বে স্থানীয় বালু খেকো চক্রটি তার উপর অতর্কিত হামলা চালায়।হামলার এক পর্যায়ে তাকে মারাত্মক ও রক্তাক্ত অবস্থায় টেনেহিঁচড়ে ঘাগটিয়া বাজারে এনে একটি গাছের সাথে রশ্মি দিয়ে বেঁধে জনসম্মুখে নির্যাতন চালায়।

সংবাদ পেয়ে বাদাঘাট ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মাহমুদুল হাসানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে উদ্ধার করে,উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। উন্নত চিকিৎসার জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

এ ব্যাপারে সাংবাদিক কামাল হোসেন গণমাধ্যম কে জানান নদীর তীর কেটে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলনের ছবি তুলতে গেলে বালু খেকো ঘাগটিয়া গ্রামের রইস মিয়া, দ্বীন ইসলাম মাহমুদুল মিয়া সহ একটি চক্র তার উপর হামলা করে এবং তার সাথে থাকা মোবাইল, ক্যামেরা ও মোটরসাইকেল তারা চিনিয়ে নিয়ে যায়।