বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলায় জীবিত কই মাছ গলায় আটকে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। রোববার (২১ ফেব্রুয়ারি) ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

গত ২০ ফেব্রুয়ারি দুপুরে দুষ্টুমি করে জীবিত কই মাছ গাল দিয়ে চেপে ধরে অন্যদের দেখাতে গেলে গলার ভেতর চলে গিয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।

নিহতের নাম শেখ মনির ওরফে মন্টু। তিনি উপজেলার ঘারুয়া ইউনিয়নের চৌকিঘাটা গ্রামের কানু শেখের ছেলে।

নিহত মনিরের ভাই মিজানুর শেখ বলেন, গত ২০ ফেব্রুয়ারি দুপুরে ঘারুয়ার বিলের পুকুরে মাছ ধরতে নামে মনির। সে একটি কই মাছ ধরে তার থলেয় না রেখে দুষ্টুমি করে পাড়ের সবাইকে তার বাহাদুরি দেখাতে চেষ্টা করে। নিষেধ করেও মুখে দেওয়া ফেরানো যায়নি তাকে। মুখে নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে গলার ভেতর চলে গেলে মনির পানিতেই লুটিয়ে পড়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। পরে মনিরকে উদ্ধার করে ভাঙ্গা হাসপাতালে নিয়ে আসি। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাকে ফরিদপুরে স্থানান্তর করেন। ফরিদপুর মেডিকেলের চিকিৎসকরা মনিরের গলায় অপারেশন করে কই মাছটি বের করেন। কিন্তু মনিরের আর জ্ঞান ফেরেনি। পরে রোববার সকালেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায়।

ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নাক, কান ও গলা (ইএনটি) বিভাগের প্রধান ডা. শফিকুর রহমান জানান, মনিরের গলা ও শ্বাসতন্ত্রের ব্যাপক ক্ষতি হয়। অস্ত্রোপচার করে তার গলা থেকে মাছটি বের করা হয়। কিন্তু তার চেতনা ফিরেনি আর। রোববার সকালে দু’বার বমি করে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন তিনি।