তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরে ব্যাপক আয়োজনের মধ্য দিয়ে আজ (১৭ মার্চ) থেকে ১০ দিনব্যাপী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন শুরু হয়েছে। ‘বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন, শিশুর হৃদয় হোক রঙিন’ এই প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ১০ দিনের এ উৎসব আয়োজন গৃহীত হয়েছে।

একই সময়ে রায়পুরে প্রশাসনের উদ্যোগে ৭ মেধাবি শিক্ষার্থীকে নিয়ে ব্যাতিক্রমি অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক নানা রকম বর্ণাঢ্য জীবন নিয়ে “শিশুরাই অতিথি ও শিশুরাই উপস্থাপক” এবং দর্শক ছিলেন ইউএনও, উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান, এসপি, ওসি, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক ও শিক্ষক প্রমুখ।

এ উপলক্ষে বুধবার সকাল সাড়ে ৮টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্যদিয়ে বর্ণিল এ উৎসব আয়োজনের কর্মসূচি শুরু হয়।

এ সময় জেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ ও আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক-সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে জাতির পিতার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

পরে কালেক্টরেট প্রাঙ্গণে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শিশুদের নিয়ে কেক কাটা, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ সফিউজ্জামান ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মো. আনোয়ার হোছাইন আকন্দ।

এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, পুলিশ সুপার ড. এ এইচ এম কামরুজ্জামান, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ শাহজাহান, লক্ষ্মীপুর পৌরসভার মেয়র মুক্তিযোদ্ধা মো. আবু তাহের, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম ফারুক পিংকু, সিভিল সার্জন ডা. মো. আবদুল গাফফার ও স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা সংগঠক মো. মাহাবুবুল আলম প্রমুখ।

এসময় বক্তারা বলেন, ‘সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদের অহংকার। তার জন্ম এবং জীবন সংগ্রাম আমাদের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস। শিশুদের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসার নিদর্শন স্বরূপ তার জন্মদিবসে জাতীয় শিশু দিবস ঘোষণা করা হয়।’

পরে শিশুদের অংশগ্রহণে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। এতে জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারী ছাড়াও বিভিন্ন স্তরের মানুষ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়াও দিবসটি উপলক্ষে জেলাজুড়ে সরকারি, বেসরকারি, আধাসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত সকল প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়।

তাছাড়া দিবসটি উদযাপনের অংশ হিসেবে স্থানীয় বিভিন্ন মসজিদ, মন্দির, গির্জাসহ সকল ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর জন্য বিশেষ প্রার্থনার আয়োজন করা হয়েছে। জেলার সকল হাসপাতাল, জেলখানা, শিশু পরিবার, এতিমখানা ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মাঝে মিষ্টান্ন ও উন্নতমানের খাবার বিতরণ করাসহ বিভিন্ন কর্মসূচী রয়েছে লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে ১০দিন ব্যাপী এ উৎসব আয়োজনে।

Previous articleশাহজাদপুরে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস পালিত
Next articleকিশোর গ্যাং জাতির জন্য ভয়াবহ অশনিসংকেত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।