বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বিএনপির বিক্ষোভ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে কিশোরগঞ্জ ও নওগাঁয় দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে। কিশোরগঞ্জ অনুমতি কর্মসূচি করার চেষ্টা করলে বাধা দেয় পুলিশ। নওগাঁয় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কাঁদানে গ্যাস ও রাবার বুলেটের গুলি ছোড়া হয়। এছাড়া বেশ কয়েক জেলায় সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করে স্বাধীনতা দিবসে পুলিশি হামলা ও হত্যাকাণ্ডের অভিযোগ এনে কঠোর সমালোচনা করেন বিএনপি নেতাকর্মীরা।

মঙ্গলবার (৩০ মার্চ) দুপুর পুলিশের অনুমতি ছাড়াই কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে প্যতিবাদ মিছিল নিয়ে রাস্তায় নামে কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপির নেতাকর্মীরা। এসময় পুলিম বাধা দিলে শহরের পুরান থানা এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। প্রায় ২ ঘণ্টার ধরে চলে দুই পক্ষের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া। পুলিশকে লক্ষ্য করে রেল লাইনের পাথর ছোঁড়ে বিক্ষোভকারীরা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে কাদানে গ্যাস ও ফাঁকাগুলি ছোড়ে পুলিশ। আহত হন পুলিশসহ বেশ কয়েকজন।

একই কর্মসূচিতে নওগাঁয় জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নেন দলীয় নেতাকর্মীরা। বিক্ষোভ মিছিল বের করতে চাইলে বাধা দেয় পুলিশ। এ সময় পুলিশের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়ায় দলীয় নেতাকর্মীরা। একপর্যায়ে তাদের ছত্রভঙ্গের চেষ্টা করে পুলিশ। সংঘর্ষের সময় ভাঙচুর করা হয় দোকানপাট। ৭ জন রাবার বুলেটের গুলিবিদ্ধসহ আহত হন অন্তত ৩৫ জন। এর মধ্যে ২ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। আহত হন পুলিশেরও ৬ সদস্য।

নাটোরে বিক্ষোভ সমাবেশের চেষ্টা করে জেলা বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। একপর্যায়ে পুলিশের বাঁধায় সরে যান বিক্ষোভকারীরা। এছাড়া, ময়মনসিংহ, ঝিনাইদহ ও গাইবান্ধাসহ বেশকিছু জেলায় পুলিশি বাধায় পণ্ড হয়েছে বিএনপির কেন্দ্রীয় কর্মসূচির বিক্ষোভ মিছিল। এ সময় সংক্ষিপ্ত সমাবেশে হামলা ও হেফাজত কর্মীদের হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় সরকারের কঠোর সমালোচনা করেন বিএনপি নেতাকর্মীরা।

Previous articleসৌম্য ঝড়ের পরও সিরিজ হার
Next article৫৪ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।