আব্দুল লতিফ তালুকদার: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরের যমুনা নদীতে নিষিদ্ধ সময়ে চলছে ঝাটকা ইলিশ/পোনা নিধন। জাতীয় মৎস্য আইনে সরকারি ভাবে ২২ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত মা ইলিশ ধরা, ক্রয়, বিক্রি ও পরিবহণ নিষিদ্ধ ছিল। এদিকে ৪ নভেম্বর থেকে এখন পর্যন্ত চলতি মৌসুমে ঝাটকা ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ থাকলেও মৎস্য অফিসের চোখ ফাঁকি দিয়ে জেলারা দেধারচ্ছে চালাচ্ছে ঝাটকা ধরার মহোৎসব। সোমবার যমুনা তীরবর্তী গোবিন্দাসী ঘাট মাছ বাজারে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় নদী থেকে ভোর সকালে নৌকা বোঝাই করে জেলেরা ১ থেকে ২ ইঞ্চি আকারের ছোট ছোট ইলিশের পোনা বা ঝাটকা পাতিল বোঝাই করে ঘাট বাজারে মাছের আরতদারের কাছে বিক্রি করছে। এদিকে প্রতিবেদক ছবি তুলতে গেলে বুঝতে পেরে ঝাটকা শিকারী জেলেরা মাছ বোঝাই নৌকা রেখে পালিয়ে যায়। এদিকে স্থানীয় লোকজন বলছে, গেল এক সপ্তাহের ব্যবধানে যমুনা নদী থেকে প্রায় ষাট মণ ঝাটকা ইলিশ এই বাজারে বিক্রি হয়েছে। তারা আরও বলেন, প্রশাসনের গাফেলতির কারনে এসব জেলোরা জাটকা শিকার করতে সাহস পাচ্ছে। মাছ ব্যাবসায়ী ইসমাইল জানান, বাজারে কিছু অসৎ মৎস্য ব্যবসায়ী ও জেলে রয়েছে। এসব অপরাদের সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া দরকার। উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা এটিএম শামছুজ্জামান অফিসে না থাকায় তিনি ফোনে বলেন, নিষিদ্ধ সময়ে যেসব জেলেরা ঝাটকা নিধন করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) মো.আব্দুল্লাহ আল রনী বলেন, মৎস্য অফিস আমাদের সাথে কোয়াপারেট করলে অভিযান চালাবো। উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইশরাত জাহান বলেন, ঝাটকা শিকারিদের বিরুদ্ধে আমাদের অভিযান চলবে।

Previous articleপদ্মা সেতুতে রেলস্ল্যাবের ৭৫ ভাগ কাজ সম্পন্ন
Next articleসুইড বাংলাদেশ রংপুর শাখার দ্বি-বার্ষিক সাধারন সভা অনুষ্ঠিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।