বাংলাদেশ প্রতিবেদক: রাজধানীর হাসপাতালগুলোতে ফাঁকা নেই সাধারণ শয্যা বা নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্র (আইসিইউ)। সামর্থের তুলনায় করোনাভাইরাস পরীক্ষা করতে আসা রোগীর সংখ্যা বেশি হওয়ায় অনেকেই করাতে পারছেন না টেস্ট। হাই ফ্লো অক্সিজেন বেডগুলো পরিপূর্ণ থাকায় অন্যান্য রোগীদের অক্সিজেন দেওয়া হচ্ছে সিলিন্ডারের মাধ্যমে। চিকিৎসকরা বলছেন, সেখানেও তৈরি হয়েছে সংকট। আর এত রোগী সামলাতে হিমশিম খাচ্ছেন তারা।

রাজধানীর মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটের সক্ষমতা রয়েছে দৈনিক ১৮০টি নমুনা নেয়ার। কিন্তু পরীক্ষা করতে আসছেন দ্বিগুণেরও বেশি। তাই ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে নমুনা দিতে না পারায় ক্ষোভ জানিয়েছেন রোগীরা।

এক রোগী জানান, গতকাল এসেছিলাম তখন ৩ ঘণ্টা দাঁড়িয়ে ছিলাম। আজকে আসছি, কখন পাব জানি না।

হাসপাতালে আসা আরেক নারী জানান, কোনো নিয়ম মানা হচ্ছে না। একজন আরেকজনের গায়ের ওপর পড়ছে। নুমনা দিতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে আছি।

রিপোর্ট নিতে আসা একজন জানান, আমি নমুনা আগেই দিয়েছি কিন্তু মোবাইলে ম্যাসেজ আসেনি। এখন রিপোর্ট নিতে এসে দেখি সব বন্ধ রয়েছে। বুথ খোলা হয়নি।

১৪টি আইসিইউ ১০টি এইচডিইউ ও ৩৩০টি শয্যার মধ্যে ফাঁকা নেই একটিও। চিকিৎসক জানালেন হাই ফ্লো অক্সিজেন বেড ২৭০টি ছাড়া ক্রিটিকাল রোগীদের সিলিন্ডারের মাধ্যমে দেয়া হচ্ছে অক্সিজেন। সেখানেও রয়েছে প্রয়োজনের তুলনায় অক্সিজেন সংকট।

চিকিৎসক জানান, এখানে কোনো বেড নেই। যেভাবে রোগী আসছে চিকিৎসা দেয়া যাচ্ছে না।

এ ছাড়া স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেও করোনা পরীক্ষা করতে আসছেন অসংখ্য রোগী। মানা হচ্ছে না কোনো ধরনের সামাজিক দূরত্ব। আর নমুনা দিতে ভোগান্তির নানা অভিযোগ রয়েছে।

Previous article৫ হাসপাতাল ঘুরে অ্যাম্বুলেন্সেই মারা গেলেন মা, লাশ জড়িয়ে ছেলের আহাজারি
Next articleচট্টগ্রামে একদিনে করোনায় রেকর্ড আক্রান্ত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।