এস এম শফিকুল ইসলাম: জয়পুরহাট সদর উপজেলার পশ্চিম কোমরগ্রাম এলাকায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে বৌ-শ্বাশুরীর ঝগড়ার জেরে ছেলের হাতে মা খুন হয়েছেন। গতকাল রোববার দিবাগত রাতে ছেলে উজ্জল হোসেনের (২৮) ইটের আঘাতে গুরুতর আহত মা সুফিয়া খাতুন (৫৫) সোমবার ভোর রাতে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে মারা যান। এ ঘটনায় ছেলে উজ্জল হোসেনকে কালাই উপজেলার শালগুণ এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। নিহত সুফিয়া খাতুন জয়পুরহাট সদর উপজেলার পশ্চিম কোমরগ্রামের তছলিম উদ্দিনের স্ত্রী। পুলিশ ও প্রতিবেশীরা জানান, উজ্জলের বোন নুর বানু বিদেশে থাকতো। সেখানে কিছু টাকা জমিয়ে ৫ মাস আগে সে বাড়িতে আসলে ভাই উজ্জল তাকে স্বামী তালাক করায়। এরপর উজ্জল সেই টাকা থেকে ১লাখ টাকা ব্যবসার জন্য দাবি করলে নুর বানু আবারও স্বামীর বাড়িতে যাবে বলে টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানায়। এই নিয়ে তাদের পরিবারে কয়েকদিন থেকে ঝগড়া-বিবাদ চলছিলো। গত (২৫ এপ্রিল) রোবাবার রাতে সুফিয়া তার ছেলে উজ্জলের স্ত্রী মেনোকাকে চুলা থেকে ছাই সড়াতে বলেন। এতে শ্বাশুরী ও বৌ এর মধ্যে কথাকাটাকাটি এক পর্যায়ে উজ্জল স্ত্রীর পক্ষ নিয়ে মা সুফিয়ার মাথায় ইট দিয়ে আঘাত করেন। গুরুতর আহত সুফিযাকে প্রথমে জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করানো হলে অবস্থার অবনতি ঘটায় তাকে বগুড়া শজিমেক হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। পরে সোমবার ভোর রাতে তিনি সেখানে চিকিসাধীন অবস্থায় মারা যান। জয়পুরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম আলমগীর জাহান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, পুলিশ খবর পাওয়ার পর সোমবার সকালে ছেলে উজ্জলকে গ্রেপ্তার করেছে। এ ব্যাপারে সোমবার দুপুরে সুফিয়া খাতুনের ভাই মজিবর রহমান বাদী থানায় মামলা করলে আসামিকে দুপুরে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

Previous articleচান্দিনায় স্বেচ্ছাসেবকলীগের উদ্যোগে বিনামূল্যে কৃষকের ধান কাটা শুরু
Next articleটাঙ্গাইলে যৌনপল্লীতে ত্রাণ সামগ্রী ও শিশুদের মাঝে নগদ টাকা বিতরণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।