জি.এম মিন্টু: হাইকোর্টের নিদের্শে বন্ধ হলেও স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিকে ম্যানেজ করে সিলগালাকৃত সেই অবৈধ হামজা ব্রিকস-এ চলছে ইট নির্মান ও প্রস্তুতির কাজ। ভাটা মালিক নিজে দাঁড়িয়ে থেকে ভাটার সমস্ত কাজ পরিচালনা করছেন। সিলগালার মধ্যেও ভাটার চলমান কাজের ছবি তুলতে গিয়ে সাংবাদিকরা অবৈধ ঐ ভাটা মালিক হুমায়ুন কবিরের রোশানলের শিকার হয়েছেন। সিলগালার পরও ভাটায় কাজ চলছে এমন সংবাদ পেয়ে কেশবপুর ও চুকনগরের কর্মরত সাংবাদিকরা সোমবার (২৬ এপ্রিল-২১) দুপুরে আগরহাটি-ভায়না এলাকায় সরকারী খাঁস জমির উপর অবৈধভাবে গড়ে উঠা মেসার্স হামজা ব্রিকস-এ সরেজমিনে সংবাদ সংগ্রহে যায়। এসময় দেখা যায় ্ধসঢ়;অবৈধ এই হামজা ব্রিকস এ মালিক নিজে দাড়িয়ে থেকে শ্রমিকদের দিয়ে ভাটায় ইট পুড়ানো ও ইট প্রস্তুতের কাজ পরিচালনা করছেন। ভাটার কাজের ছবি তুলতে গেলে সাংবাদিকরা মালিকের বাঁধার মুখে পড়েন। এক পর্যায়ে বাঁধা উপেক্ষা করে সাংবাদিকরা ঝুকি নিয়ে শ্রমিকদের কাজের ছবি তোলেন। উচ্চ আদালতের নির্দেশে কেশবপুর উপজেলা প্রশাসন হামজা ব্রিকস এর সার্বিক কর্মকান্ড বন্ধসহ ভাটাটি সিলগালা করে দেওয়ার পরও কিসের ভিত্তিতে ভাটার কাজ করা হচ্ছে-সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের উত্তরে কোন সঠিক জবাব না দিয়ে উল্টো সাংবাদিকদের উপর চটেন এই অবৈধ ভাটার মালিক হুমায়ুন কবির। তিনি সাংবাদিকদের সাথে খারাব আচারন করে বলেন, ভাটা বন্ধ বা চালু সেটি ইউএনও দেখবে, আপনারা (সাংবাদিক) দেখার কে? আপনাদের এই ভাটায় আসার কে পারমিশন দিয়েছে? এই ভাটার কোন ছবি তুলতে গেলে আমার কাছ থেকে আগে পারমিশন নিতে হবে। আপনারা সাংবাদিক হোন আর যেই হোন ইউএনও’র কাছে যান, এখানে কেন এসেছেন। ইউএনও’র কাছ থেকে পারমিশন নিয়েই ভাটার কাজ করছি। আপনারা যা পারেন, তাই করেন। ভাটা মালিকের এহেন বক্তব্যের ফলে তাৎক্ষনিকভাবে সাংবাদিকরা কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এম.এম আরাফাত হোসেনের কাছে মোবাইল করে ভাটা মালিকের বক্তব্য তুলে ধরেন। এসময় ইউএনও সাংবাদিকদের বলেন, ঐ ভাটাটি উচ্চ আলারতের নির্দেশে গত ২১ এপ্রিল-২১ উপজেলা সহকারী কমিশনার(ভুমি) ইরুফা সুলতানা ঘটনাস্থলে গিয়ে ভাটার সকল কর্মকান্ড বন্ধসহ ভাটাটি সিলগালা করে দিয়ে আসেন। এরপরও যদি ভাটার কাজ চালু থাকে তাহলে ভাটা মালিককে কোন ভাবে ছাড় দেওয়া হবে না। তিনি সাংবাদিকদের আরো বলেন, এখনই থানা পুলিশকে বলা হচ্ছে,তারা দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে কাজ বন্ধ করে দিবেন। সাংবাদিকদের হস্তক্ষেপে দুপুর ২ টার দিকে কেশবপুর থানা পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে যখন পৌছান তখনও ভাটায় ইট পোড়ানোর কাজ চলছিল। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ইট পোড়ানো মিস্ত্রিরা গা ঢাকা দেয়। পরে পুলিশের কথায় ম্যাশিন বন্ধ করে দেয়। পুলিশ ও সাংবাদিক ঘটনাস্থল ত্যাগ করার সাথে সাথে আবার ঐ ভাটার কাজ শুরু করে দেয়। তবে ভাটা মালিক প্রশ্নের এক পর্যায়ে তিনি শিকার করেন যে ইউএনও’ সারের অনুমতি নিয়েই তিনি আবার ভাটার কাজ চালু করেছেন। তাছাড়া ভাটা চালানোর ক্ষেত্রে স্থানীয় চেয়ারম্যানের পূর্ন সমর্থনও রয়েছে। নির্ভরশীল একটি সূত্রে জানা গেছে, মোটা অংকের অর্থবানিজ্যের বিনিময়ে উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় চেয়ারম্যানকে ম্যানেজ করে হামজা ব্রিকস প্রকাশ্যে বা গোপনে ভাটার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। এলাকার সচেতন মহলের প্রশ্ন, যে ভাটাটি বন্ধে উচ্চ আদালত রায় দিয়েছে, এমনকি উপজেলা প্রশাসন সেই ভাটাটি বন্ধসহ সিলগালা করে দিয়েছে। তাহলে কোন অদৃশ্য শক্তির বলে হামজা ব্রিকস এর মালিক আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখানোর দুঃসাহস পাচ্ছে! ্ধসঢ়;অবৈধ এই ভাটা বন্ধসহ ভাটা মালিক হুমায়ুনের খুঁটির জোর কারা তাদেরকে চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন এলাকার সচেতন মহল। এব্যপারে কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার এম.এম আরাফাত হোসেন বলেন, সাংবাদিকদের মোবাইল ফোন পেয়ে তাৎক্ষনিকভাবে পুলিশ পাঠিয়ে হামজা ব্রিকস এর কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। উল্লেখ্য, বুধবার(২১ এপ্রিল-২১) উচ্চ আদালতের নির্দেশে কেশবপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) ইরুফা সুলতানা পুলিশ ফোর্স নিয়ে ঐ ভাটায় অভিযানে যান। এসময় ভাটার কোন বৈধ কাগজপত্র না থাকায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেস এর ক্ষমতাবলে ভ্রাম্যমান আদালত বসিয়ে ইট প্রস্তুত ও ভাটা ব্যবস্থাপনা আইন ২০১৩ এর (৪) ধারা মোতাবেক মের্সাস হামজা ব্রিকসকে নগত ৫০ হাজার টাকা অর্থদন্ড ও ভাটার জাবতীয় কাজ বন্ধসহ ভাটাটি সিলগালা করে দেন।

Previous articleকালকিনিতে ট্রাক-মোটরসাইকেল মুখোমুখি সংঘর্ষে বৃদ্ধ বাবা নিহত, ছেলে আহত
Next articleমুনিয়ার ময়নাতদন্ত শেষ, নেওয়া হচ্ছে কুমিল্লায়
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।