বাংলাদেশ প্রতিবেদক: সৈয়দপুরে প্রেমিকাকে ধর্ষণ ও ভিডিও ধারণের দায়ে ধর্ষকসহ তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার (১ মে) রাতে ওই তিন বন্ধুকে বিভিন্ন স্থান থেকে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ২ মিনিট ৩০ সেকেন্ডের ধর্ষণের ভিডিওটি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন সৈয়দপুর উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের লক্ষণপুর চড়কপাড়ার আব্দুল মালেকের ছেলে মো. মুন্না (২৫), একই গ্রামের পাঠানপাড়ার শওকত আলীর ছেলে মো. আলাল (২৫) ও আমজাদের মোড়ের শহিদুল ইসলামের ছেলে তৌফিক ইসলাম তুহিন (২০)। তিনজনই পরস্পরের বন্ধু।

জানা যায়, সৈয়দপুরের বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের লক্ষণপুর চড়কপাড়ার এক মাদ্রাসাছাত্রীর সঙ্গে ২০১৮ সালে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে একই পাড়ার মো. মুন্নার। ওই বছরের ৭ সেপ্টেম্বর পাঠানপাড়ার আলালের বাড়িতে দেখা করে মুন্না ও ওই ছাত্রী। এ সময়ে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে তাকে ধর্ষণ করে মুন্না। প্রেমিক কৌশলে ওই ধর্ষণের ঘটনাটি মোবাইলে ধারণ করে।

পরবর্তীতে ২০২০ সালের ২৪ জানুয়ারি ওই মাদ্রাসাছাত্রী একই গ্রামের অন্যত্র বিয়ে হয়। তাদের সুখের সংসারে বিপত্তি দেখা দেয় চলতি বছরের ১০ এপ্রিল। এদিন রাত ৯টার ভিকটিমের সঙ্গে মুন্নার অপর বন্ধু তুহিন দেখা করে তাকে জানায়, মুন্নার সঙ্গে তার ধর্ষণের একটি ভিডিও তার কাছে রয়েছে।

ভিডিওটির সত্যতা যাচাইয়ের জন্য ১৪ এপ্রিল ওই মাদ্রাসাছাত্রী সৈয়দপুর প্লাজার ‘বার্গার কিং’ নামে একটি চাইনিজ রেস্টুরেন্টে তুহিনের সঙ্গে দেখা করে। তুহিন একটি ফেসবুক আইডি থেকে ২ মিনিট ৩০ সেকেন্ডের ওই ভিডিও ক্লিপসটি দেখায় ভিকটিমকে। পরে সেটি ডিলিট করার জন্য অনুরোধ জানালে তুহিন ২ লাখ টাকা অথবা দৈহিক মেলামেশা করার প্রস্তাব দেয় তাকে। এতে অসম্মতি জানিয়ে নিজ বাড়িতে ফিরে যায় ওই মাদ্রাসাছাত্রী।

শনিবার (১ মে) সকালে তুহিন মোবাইল ফোনে ভিকটিমকে আবারো টাকা অথবা দৈহিক মেলামেশার প্রস্তাব দেয়। এতে রাজি না হলে ভিডিওটি ইন্টারনেট ও ফেসবুকে ছেড়ে দেয়ার হুমকি প্রদান করে। এ ঘটনায় ওইদিন বিকেলে ভিকটিম নিজে বাদী হয়ে তিনজনকে আসামি করে সৈয়দপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) সাইদুর রহমান জানান, মামলার পরপরই শহরের পাঁচমাথা মোড় থেকে তৌফিক ইসলাম তুহিন, আমজাদের মোড় থেকে মো. আলাল এবং নিজ বাড়ি থেকে মো. মুন্নাকে গ্রেফতার করা হয়।

সৈয়দপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আতাউর রহমান জানান, নারী শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ এর ৯ (১)/৩০ ও পর্নোগ্রাফি আইন ২০১২ এর ৮(১/২/৭) ধারায় মামলাটি রুজু করা হয়েছে।

সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল হাসনাত খান জানান, রোববার (২ মে) ভিকটিমকে শারীরিক পরীক্ষার জন্য নীলফামারী আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হবে। অপরদিকে গ্রেফতারকৃত আসামিদের আদালতে প্রেরণ করা হবে।

Previous articleমুনিয়ার মৃত্যু: হুইপপুত্র শারুনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা
Next articleকরোনায় আজও ৬৯ জনের প্রাণহানি
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।