অতুল পাল: পটয়াখালীর বাউফলের তেঁতুলিয়া নদীর ত্রাস মহসিন বাহিনী। বাউফল এবং বাকেরগঞ্জের পাশ দিয়ে প্রবাহিত তেঁতুলিয়া নদীর প্রায় ৪০ কিলোমিটার এলাকা দীর্ঘদিন ধরে নিয়ন্ত্রণ করে দিনে দুপুরে কার্গো এবং ট্রলারে ডাকাতি, জেলেদের থেকে চাঁদা আদায়, খাল দখল করে নিজেদের লোক দিয়ে মাছ শিকার কিংবা মোটা অংকের বিনিময়ে জেলেদের কাছে অঘোষিত ইজারা দেয়াসহ বিভিন্ন তান্ডব চালাচ্ছে এই মহসিন বাহিনী। কেউ চাঁদা না দিতে অস্বীকার করলে তাদের ওপর শুরু হয় অমানুবিক নির্যাতন এবং লুটপাট। এলাকার একটি দালাল চক্র এবং একটি প্রভাশালী গোষ্ঠীর ছত্রছায়ায় দীর্ঘদিন ধরে তেঁতুলিয়া নদীতে মহসিন বাহিনী তান্ডপ চালিয়ে আসলেও অদৃশ্য কারণে প্রশাসনের ধরা ছোঁয়ার বাহিরে রয়েছে মহসিন ডাকাত ও তার বাহিনী। সূত্র জানায়, বরিশালের দূর্গাপাশা থেকে বাউফলের ধুলিয়া, কেশবপুর, নাজিরপুর ও চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নের প্রায় ৫ হাজার জেলে দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে মহসিন ডাকাতের কাছে জিম্মি হয়ে রয়েছেন।

জেলেদের প্রতি ছোট নৌকা ৫ হাজার এবং মাছ ধরার ইঞ্জিনচালিত প্রতি ট্রলারে ১০ হাজার টাকা হারে বছরে দুই বার চাঁদা দিতে হয় মহসিন বাহিনীকে। চাঁদা না দিলে শিকার হতে হয় মারধরসহ অমানবিক নির্যাতন ও লুটপাটের। মহসিন বাহিনীর নির্যাতনের শিকার হয়নি এমন জেলের সংখ্যা এই অঞ্চলে খুবই কম। মহসিন বাহিনীর নির্যাতনে গুরুতর আহত কেশবপুর ইউনিয়নের মমিনপুর গ্রামের ইব্রাহিম ব্যাপারী, ফিরোজ হাজী, অহেদ মাল, দুলাল গাজী, মোতাহার, মিরাজ, সজল সিকদার, ধুলিয়া ইউনিয়নের মঠবাড়িয়া গ্রামের জহিরুল হকসহ অনেক জেলে এখন ভয়ে নদীতে মাছ শিকার বাদ দিয়ে দিয়েছেন। নির্যাতন থেকে রক্ষা পেতে চাঁদা দেওয়া এখন নিয়মে পরিণত হয়েছে। জেলেদের থেকে চাঁদা আদায় ছাড়াও চরাঞ্চল থেকে দিনে দুপুরে গরু-মহিষ লুটপাট এবং মালবাহী কার্গো ও ট্রলারে ডাকাতি করে আসছে মহসিন বাহিনী। কেশবপুর ইউনিয়নের জাফরাবাদ ও বাদামতলী গ্রামের জেলেরা জানান, কেশবপুর ইউয়িনের লাল চরে প্রায় ৫০টি খাল রয়েছে।এলাকার প্রায় এক হাজার জেলে ওই খালগুলোতে মাছ শিকার করে তাদের জীবিকা নির্বাহ করে আসছিল। চলতি মৌসুমে ওই খালগুলো মহসিন বাহিনী তাদের দখলে নিয়ে গেছে। এরফলে কেশবপুরের জেলেরা তাদের জীবিকা নির্বাহে ভিষন বিপাকে পড়েছেন। এব্যপারে প্রতিকার চেয়ে বাউফল থানা এবং উপজেলা প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগও দিয়েছেন জেলেরা। অনুসন্ধানে জানা গেছে, কেশবপুর ইউনিয়নের ১০/১২ জনের সংঘবদ্ধ একটি দালাল চক্র মহসিন ডাকাতের এজেন্ট হিসেবে কাজ করছেন। তাদের মাধ্যমেই চাঁদার টাকা লেনদেন হয়। এদের মধ্যে মমিনপুরের কুক্কা খালেক ও বাদামতলীর ফারুক জোমাদ্দার সক্রিয় ভূমিকা রাখেন বলে এলাকাবাসীরা জানিয়েছেন। কেশবপুর ইউনিয়নের কালা মিয়া বাজারের এক বিকাশের দোকানসহ ব্যাক্তিগত বিকাশ থেকে আদায়কৃত চাঁদার টাকা লেনদেন হয় বলে জানা গেছে। একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছেন, কেশবপুর ইউয়িনের একটি প্রভাবশালী মহলের সাথে মহসিনের সখ্যতা রয়েছে। ওই মহলটি মহসিন বাহিনী কর্তৃক ডাকাতির মালামাল উদ্ধার এবং অর্থের বিনিময়ে রফাদফা করে দেন। এর বিনিময়ে তারা মহসিনের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নিচ্ছেন। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, কুখ্যাত মহসিন ডাকাত ভোলা জেলার দৌলতখাঁন উপজেলার দক্ষিণ জয়নগর গ্রামের কয়ছর গাজীর ছেলে। মহসিন ডাকাতের সেকেন্ড ইন কমান্ড হিসাবে কাজ করছে তার আপন ভাই পারভেজ গাজী। অন্যতম সহযোগি হিসাবে রয়েছে মহসিনের মামা হাসান এবং কবির রাড়ী। ২০/২৫ জনের সমন্বয়ে গড়ে তুলেছেন দস্যুবাহিনী। এই বাহিনীর কাছে পাইপগান, রিভালবারসহ দেশীয় অস্ত্রের ব্যাপক মজুদ রয়েছে। ইতিপূর্বে ডাকাতিকালে একাধিকবার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে গোলাগুলির ঘটনাও ঘটেছে। নাম না প্রকাশ করার শর্তে কেশবপুর ইউনিয়নের এক জনপ্রতিনিধি বলেন, তেঁতুলিয়া নদীর পাড়ে প্রায় মানুষই জেলে। তারা মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করেন। মহসিন বাহিনীর ভয়ে কেউ কিছু বলার সাহস পাচ্ছে না। জীবন ও জীবিকার তাগিদে বাধ্য হয়ে জেলেরা চাঁদা দিয়ে নদীতে মাছ ধরে। আমি নিজেও জেলে। কয়েকদিক আগেও আমার ট্রলারে হামলা করে মহসিন বাহিনী। আমার নাম প্রকাশ হলে আবারও আমার ওপর হামলা হবে এবং জীবনের ওপর হুমকিও আসতে পারে। ওই জনপ্রতিনিধি আরও বলেন, ভোলা, পটুয়াখালী ও বাউফল পুলিশের কাছে অনেকবার লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু অদৃশ্য কারণে পুলিশ, নৌ পুলিশ এবং কোস্টগার্ড মহসিন ডাকাতকে আজও ধরতে পারেনি। নাম-পরিচয় গোপন রেখে মুঠোফোনে মহসিন ডাকাতের সাথে কথা হলে তিনি চাঁদাবাজির কথা স্বীকার করে বলেন, আমার নামে দালালরা টাকা তোলে। সেই টাকা থেকে আমাকে কিছু টাকা দেন। বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আল মামুন বলেন, মহসিন ডাকাত এবং তার বাহিনীদের ধরতে পুলিশের চেষ্টা অব্যহত রয়েছে। আশা করি আমাদের চেষ্টা ব্যর্থ হবে না। বাউফল উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাকির হোসেন বলেন, বিষয়টি নিয়ে উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায়ও আলোচনা হয়েছে। ওসিকে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Previous articleসরকারের অন্ধ সমালোচনায় বিএনপি সত্য ভুলে গেছে: কাদের
Next articleচাঁপাইনবাবগঞ্জে গত ২৪ ঘন্টায় আরও ১০৬ জন আক্রান্ত ৩ জন মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।