এস এম শফিকুল ইসলাম: প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি রোধ করে উত্তরের সীমান্ত জেলা জয়পুরহাটের জনসাধারণের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করতে জেলার জয়পুরহাট পৌরসভাসহ সদর উপজেলা ও পাঁচবিবি পৌরসভা এলাকায় আংশিক লকডাউনের ন্যায় নতুন বিধি নিষেধ জারি করেছে জেলা প্রশাসন।

সোমবার দুপুরে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এবং করোনাভাইরাস সংক্রমণ ও প্রতিরোধসহ সার্বিক ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি মো. শরিফুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক গণবিজ্ঞপ্তিতে এই নতুন বিধি নিষেধের বিষয়ে ঘোষণা দিয়ে মাইকিং করা হয়। জেলা প্রশাসন সুত্রে জানা গেছে, মানুষের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় অধিকতর সতর্কতা অবলম্বন ও করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে সোমবার সকাল দশটায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত করোনা ভাইরাস সংক্রমণ ও প্রতিরোধসহ সার্বিক ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় আংশিক এ লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। ঘোষিত আংশিক লকডাউন বিধিতে জয়পুরহাট ও পাঁচবিবি পৌর এলাকায় বিকেল ৫টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত সকল ধরণের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান,কাঁচা বাজার,খুচরা ও পাইকারী বাজার, মুদি দোকান রেষ্টুরেন্ট ও চায়ের দোকান বন্ধ রাখার ঘোষণা দেওয়া হয়। তবে ঔষধ,চিকিৎসা সেবা,মৃতদেহ দাফন অথবা সৎকার কাজে জড়িত প্রতিষ্ঠান লকডাউনের আওতামুক্ত থাকবে। এ সময় স্বাস্থ্যবিধি মেনে কৃষি পণ্য ও খাদ্য সামগ্রী পরিবহণ এবং দুরপাল্লার বাস চলাচল করতে পারবে। একই সাথে ভারত সীমান্তবর্তী জয়পুরহাট ও পাঁচবিবি’র গরুর হাট ১৪ জুন পর্যন্ত বন্ধ রাখারও সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়। জেলা প্রশাসনের এমন সিদ্ধান্তের পর তা বাস্তবায়নে শহরে ব্যাপকভাবে মাইকিং করা হয়। দুপুর থেকে শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান নিয়ে জয়পুরহাট পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলরগণ মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে বাধ্য করার পাশাপাশি মাস্কও বিতরণ করেন। এ সময় পৌর মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক বলেন, মানুষের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও করোনার বিস্তার রোধে জয়পুরহাট পৌরসভার কাউন্সিলরবৃন্দ স্বাস্থ্যবিধি বাস্তবায়নে প্রতিদিন মাঠে অবস্থান নিয়ে প্রশাসনকে সহযোগীতা করবে। এদিকে করোনা আক্রান্ত হয়ে কোয়ারিন্টিনে চিকিৎসা নিচ্ছেন জয়পুরহাট জেলা আধুনিক হাসপাতালের ডাক্তার ও নার্স সহ ১৫ জন, জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা সহ ৬জন এবং পুলিশ বিভাগের ১২জন সদস্য। মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ২০৪১ জন, মারা গেছে ১৩ জন আর সুস্থ্য হয়েছন ১৬৩৫ জন। জেলায় করোনা সংক্রমণের উর্দ্ধগতি ঠেকাতে নানা পদক্ষেপের পাশাপাশি নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষার জন্য জয়পুরহাট স্টেডিয়াম ও পাঁচবিবির পাঁচমাথায় দু’টি নতুন বুথ স্থাপন করা হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় ৭টি বুথে সংগ্রহ করা নমুনার র‌্যাপিড এন্টিজেন। জেলা প্রশাসক মো.শরীফুল ইসলাম বলেন,সীমান্তবর্তী জেলা হওয়ায় জয়পুরহাট ও পাঁচবিবি পৌর এলাকায় এবার করোনা আক্রান্তের হার বেশি। করোনার এই প্রকোপ ঠেকাতে আংশিক লকডাউন ঘোষণা করা হয়েছে। যা বাস্তবায়নে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া

হবে। তারপরও যদি সংক্রমণের গতি না কমে তাহলে পরবর্তী সভায় আলোচনা করে পুর্ণাঙ্গ লকডাউন বাস্তবায়ন করা হবে।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার
Next articleবাউফলে মেঘ ও বিদ্যুতের লুকোচুরি খেলায় জনজীবন অতিষ্ঠ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।