জি.এম.মিন্টু: কেশবপুরে মধু মহাতাপ নামে এক মৌয়াল মানুষকে অবাক করার মত কান্ড ঘটিয়েছেন। তিনি কোন তন্ত্র-মন্ত্রের সাহায্যে নয়, নিজের বাঁশির সুরে বোনের মৌমাছিকেও বস করে নিয়েছে । তার বাঁশির অদ্ভুদ সূরে চাক ছেড়ে ঝাঁকে-ঝাঁকে মৌমাছিরা তার নগ্ন শরীরে এসে যেন মৌচাকে পরিনত হচ্ছে। মধু মহাতাপের বাঁশির সুর যেন হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালাকেও হার মানিয়ে দিয়েছে।

কেশবপুর উপজেলার হাসানপুর ইউনিয়নের টিটা মোমিনপুর গ্রামে সুন্দর মনোরম পরিবেশে মৌয়াল মহাতাব মোড়লের বসবাস। তিনি ওই গ্রামের মৃত কালাচাঁদ মোড়লের ছেলে । প্রায় ২০ বছর ধরে নিজ এলাকার পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় গিয়ে মধু সংগ্রহ করাই তার পেশা। সরেজমিন তাঁর বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, ৪২ বছর বয়সী মহাতাব মোড়ল ওরফে মহাতাব মধুর হাতে লম্বা এক বাঁশি। কি সুন্দর করেই না বাঁশি বাজান তিনি। বাঁশির এক অচেনা সুরের আকর্ষণে ঝাঁকে ঝাঁকে তাঁর নগ্ন শরীরে হাজার হাজার মৌমাছি এসে বসতে শুরু করে। এক সময় পরিণত হয় মৌচাকে। এই বিশেষ কার্মকান্ডের কারণে এলাকায় তিনি মহাতাব মধু নামে বেশ পরিচিতি পেয়েছেন। বাঁশির সুরে মৌমাছি- মৌমাছি থেকে মৌচাক শরীর- এমন অদ্ভুত ও ঝুঁকিপূর্ণ ঘটনার বিষয় জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের জানান, ‘আমার বয়স যখন ১২ বছর; তখন থেকেই আমি মজার ছলে মৌ চাক থেকে মধু সংগ্রহ করতে শুরু করি। গত ২০ বছর আমি মধু সংগ্রহকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছি। ‘প্রথমে একটি দু’টি মৌমাছি শরীরে নিতে নিতে এখন হাজার হাজার মৌমাছি আমার শরীরে বসলে কিছুই উপলব্ধি করতে পারি না। বিষয়টি আমার জন্য সহজ হয়ে গিয়েছে।’ কীভাবে তার শরীরে এতো মৌমাছি বসে তা জানাতে গিয়ে মহাতাব বলেন, ‘এর জন্য শরীরকে আগে থেকেই প্রস্তুুত করতে হয়’। তিনি প্রথমে মধু সংগ্রহের বালতি বাজালেই অল্প কিছু মৌমাছি তার শরীরে এসে বসত। এরপর তিনি বালতির পরিবর্তে থালা বাজিয়ে মৌমাছিকে তার শরীরে বসাতে শুরু

করেন। এখন তিনি বালতি-থালার পরিবর্তে বাঁশি বাজান আর সেই বাশির অচেনা সুরের আকর্ষণে ঝাঁকে ঝাঁকে তাঁর নগ্ন শরীরে হাজার হাজার মৌমাছি এসে বসতে শুরু করে।

Previous articleলক্ষ্মীপুরে ৩ শ্রমিকের মৃত্যু: সেই ইটভাটা মালিকের ৬ মাসের জেল
Next articleসাপাহারে বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সামাদের রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।