মঙ্গলবার, এপ্রিল ২৩, ২০২৪
Homeসারাবাংলারায়পুরে কিশোর-ছাত্রকে যৌন হযরানি, শিক্ষক বরখাস্ত

রায়পুরে কিশোর-ছাত্রকে যৌন হযরানি, শিক্ষক বরখাস্ত

তাবারক হোসেন আজাদ: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে মাদরাসা ইশাতুন উলুম নূরানী ও হাফিজিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা মোঃ শিবলু (২৮)সহ ৬ জনের বিরুদ্ধে কিশোর-ছাত্রকে যৌন হযরানি (বলাতকারের চেষ্টা) করার অভিযোগে থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে। ঘটনার পর থেকে মাদরাসা থেকে বরখাস্ত হওয়া ওই শিক্ষক পলাতক রয়েছেন। বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) দুপুরে রায়পুর থানার ওসি আবদুল জলিল ঘটনাটির সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

ওসি জানান, অভিযুক্ত মাদ্রাসা শিক্ষক হাফেজ মাওলানা মোঃ শিবলু উপজেলার কেরোয়া ইউনিয়নের পুর্ব কেরোয়া গ্রামের মৃত দেলোয়ার হোসেনের ছেলে।

তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় বুধবার (১৬ জুন) রাতে নির্যাতনের শিকার কিশোরের বাবা বাদী হয়ে অভিযুক্ত ওই মাদ্রাসাশিক্ষকসহ ৬ জনের নামে বিরুদ্ধে রায়পুর থানায় লিখিত অভিযোগ করেন।

লিখিত অভিযোগ ও ছাত্রের মা ও নানা জানায়, প্রায় চার বছর আগে ওই মাদরাসার হেফজো বিভাগে ভর্তি হয় কিশোর ও তার শিশু ছোট ভাই । কিশোর ২০ পারা পর্যন্ত মুখাস্থ করে । গত চার মাস ধরে মধ্য রাতে মাঝে মাঝে মাথা ও শরীর ম্যাসেজ করার কথা বলে ওই কিশোরকে তার কক্ষ থেকে কৌশলে ডেকে যৌন হয়রানি করে আসছে শিক্ষক শিবলু। এঘটনা কাউকে যেন না বলে তার জন্য শপথ করা হয় কিশোরকে। রমজান মাসে ওই কিশোর ছুটিতে বাড়ীতে ( অভিভাবকসহ নানার বাড়ি তথা রায়পুর পৌরসভার তুলাতুলি বাজার এলাকায় বসবাস) যায়। ঈদের পর কিশোর মাদরাসায় যেতে না চাইলে, কেন যাবে না-? চাপ সৃষ্টি করলে শিক্ষকের যৌন হয়রানির ঘটনা অভিভাবকের কাছে খুলে বলে কিমোর। প্রায় ২০দিন আগে এঘটনার বিচার চেয়ে মাদরাসার প্রধানের কাছে অভিযোগ দেন কিশোরের নানা ও বাবা। ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় ওই শিক্ষককে বরখাস্ত করেন মাদরাসা কর্তৃপক্ষ। এঘটনা নিয়ে কিশোরের অভিভাবক চুপ হয়ে যান। পরে ১৫ দিন আগে ওই কিশোরসহ ছোট ভাইকে এ মাদরাসা থেকে টিসি নিয়ে সদর উপজেলার মান্দারি বাজার এলাকার জামিয়া ইসলামিয়া আশরাফুল মাদারিস বটতলিতে ভর্তি করা হয়েছে।

এতে ক্ষান্ত না হয়ে ঘটনা মিথ্যা প্রমান করতে গত সোমবার দুপুরে (১৪ জুন) ওই শিক্ষকসহ তার ৫ বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে মান্দারি এলাকার ওই মাদরাসায় গিয়ে কিশোরকে জিম্মি করে হত্যার ভয় দেখিয়ে সাদা কাগজে দস্তখত ও বক্তব্য ভিডিও করে নেয়। এঘটনা জানতে পেরে আবারও লুধুয়া হাফেজিয়া মাদরাসার কর্তৃপক্ষকে জানালে তারা উল্টো ঘটনাটি মিথ্যা বলেন এবং বেশি বাড়াবাড়ি করলে বিভিন্নভাবে ক্ষতি করা হুমকি দেয়া হচ্ছে ক্ষতিগ্রস্থ কিশোরসহ তার পরিবারকে।

এ ঘটনায় কেরোয়া ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান সামছুল ইসলাম (সামু) জানান, হাফেজ মাওলানা মোঃ শিবলু স্থানীয় হেফাজতের একজন সক্রিয় নেতা। এমন কলঙ্কজনক ঘটনায় ইউনিয়নবাসির পক্ষ থেকে তিনি তার কঠোর শাস্তির দাবি করেন।

এদিকে অভিযুক্ত হাফেজ মাওলানা মোঃ শিবলুর সঙ্গে মোবাইল ফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও ফোন বন্ধ থাকায় আর যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে তার ভাই জাফর আহাম্মদ বলেন, আমার ভাই নির্দোশ। এটা প্রমান করতেই ওই কিশোরের বক্তব্য নিতে মান্দারি এলাকার ওই মাদরাসায় গিয়েছিলাম। তাছাড়া শিবলু বিবাহিত। তার দুই কন্যা সন্তান রয়েছে।

মাদরাসা ইশাতুন উলুম নুরানি ও হাফিজিয়া মাদরাসার প্রধান মাওলানা মোঃ আবদুল্রাহ বলেন, কিশোর ছাত্রের উপর যৌন হয়রানির ঘটনা সত্যতা পাওয়ায় শিক্ষক শিবলুকে মাদরাসা থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। কিশোরের অভিভাবকের কাছে আমরা অনুতপ্ত হয়েছি। অন্য কিছু বলতে পারবো না। শুনেছি, থানায় লিখিত অভিযোগ হয়েছে।

এঘটনায় অভিযোগের তদন্তকারি কর্মকর্তা ও থানার উপ-পরিদর্শক (এস আই) মোঃ জহিরুল ইসলাম বলেন, অভিযোগটি তদন্ত করা হচ্ছে। এর আগে কিছুই বলা যাবে না।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments