বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বগুড়ার কাহালু উপজেলার একটি বাড়ি থেকে গ্যাস সিলিন্ডার চুরির অভিযোগে আতাউর রহমান ওরফে শিরু (২৪) নামের এক যুবককে নির্যাতন করা হয়েছে। নির্যাতনের একপর্যায়ে যুবকের পায়ে পেরেক ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার উপজেলার অঘোর মালঞ্চা গ্রামে এ নির্যাতনের ঘটনা ঘটে।

এই নির্যাতনের ভিডিও রাতে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনায় করা মামলায় আজ শুক্রবার এক নারীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। নির্যাতনের শিকার আতাউর রহমান একই গ্রামের মজনু ফকিরের ছেলে।

পরিবার ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার অঘোর মালঞ্চা গ্রামের জনি মিয়ার স্ত্রী আছিয়া বেগমের রান্নাঘর থেকে একটি এলপি গ্যাসের সিলিন্ডার চুরি হয়। গ্যাস সিলিন্ডার চুরি করে নিয়ে যাওয়ার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে গতকাল ভোরে আতাউরকে ঘুম থেকে ডেকে তুলে নিয়ে যান জনি, তাঁর স্ত্রী আছিয়া, স্বজন আমিনুলসহ পরিবারের পাঁচজন।

আছিয়াদের বাড়ির সামনে নিয়ে আতাউরের পা বেঁধে মাটিতে ফেলে লাঠি দিয়ে বেধড়ক পেটানো হয়। পরে আঙুলে সুচ ফোটানো হয় এবং পায়ে হাতুড়ি দিয়ে লোহার পেরেক ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। একপর্যায়ে আতাউর অচেতন হয়ে পড়েন। এই নির্যাতনের দৃশ্য মুঠোফোনে ভিডিও করেন প্রতিবেশীরা। পরে তা ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে আতাউরকে উদ্ধার করে কাহালু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করায়।

এ ঘটনায় গতকাল রাতে আতাউরের বাবা মজনু ফকির বাদী হয়ে কাহালু থানায় তিন নারীসহ পাঁচজনকে আসামি করে হত্যার উদ্দেশ্যে মারধরের অভিযোগে মামলা করেন। আজ দুপুরে মামলার অন্যতম আসামি আছিয়া বেগমকে (২২) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

কাহালু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আমবার হোসেন বলেন, মামলার পরপরই নির্যাতনের ঘটনার নেতৃত্বে থাকা আমিনুল ইসলাম, জনিসহ অন্যরা আত্মগোপন করেন। তবে আজ দুপুর ১২টার দিকে মামলার ২ নম্বর আসামি জনির স্ত্রী আছিয়া বেগমকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

Previous articleব্যক্তিগত কারণে আত্মগোপনে ছিলেন ত্ব-হা: ডিবি
Next articleঅমি কয়েকটি দেশের নাগরিক, পাসপোর্ট আছে ৭-৮টি দেশের
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।