এস এম শফিকুল ইসলাম: সাম্প্রতিক সময়ে সীমান্তবর্তী জেলা জয়পুরহাটে দিন দিন করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। এ অবস্থায় জয়পুরহাটের পুলিশ সুপার মাছুম আহাম্মদ ভূঞার উদ্যোগে জেলায় দায়িত্বরত পুলিশ সদস্য ও গরিব,দুস্থ, অসহায় করোনায় আক্রান্ত রোগীদের বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা চালু করা হয়েছে।

শনিবার দুপুরে জয়পুরহাট জেলা পুলিশ এর আয়োজনে পুলিশ লাইনস্ধসঢ়; ড্রিলশেডে প্রধান অতিথি হিসেবে ‘অক্সিজেন সেবা কার্যক্রম’-এর উদ্বোধন করেন জয়পুরহাট জেলা পুলিশ সুপার মাছুম আহাম্মদ ভূঞা-পিপিএম। জেলা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি জয়পুরহাট জেলায় করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় জয়পুরহাট সদর,পাঁচবিবি ও কালাই পৌরসভায় কঠোর বিধিনিষেধ জারি করেছে জেলা প্রশাসন। করোনায় আক্রান্ত জেলায় দায়িত্বরত পুলিশ সদস্য ও গরিব-অসহায় ও শ্বাসকষ্টে ভোগা রোগীদের কথা চিন্তা করে জয়পুরহাট পুলিশ সুপার মাছুম আহাম্মেদ ভূঞার উদ্যোগে অক্সিজেন সেবা চালু করা হয়। ইতিমধ্যে কয়েকজন করোনায় আক্রান্ত এবং শ্বাসকষ্টের রোগীদের এই অক্সিজেন সরবরাহ করা হয়েছে। জয়পুরহাট পুলিশ হাসপাতালের মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট আরিফুল ইসলামকে অক্সিজেন সেবার দায়িত্বে রাখা হয়েছে। ০১৭৩৭৫৯৯৬৬৬ নাম্বারে ফোন দিলেই ‘জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে বাড়িতে গিয়ে অক্সিজেন সিলিন্ডারসহ পৌঁছে যাবে পুলিশ। স্বেচ্ছা প্রণোদিতভাবে এ সেবা সম্পূর্ণরুপে বিনামূল্যে প্রদান করা হবে।’ বর্তমানে প্রাথমিকভাবে ২০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার দিয়ে এ সেবা চালু করা হয়েছে। সিলিন্ডারের সংখ্যা আরও বাড়ানো হবে। সেবা গ্রহনকারী জয়পুরহাটে কর্মরত ৭১ টেলিভিশনের সাংবাদিক মোয়াজাজিম হোসেন বলেন, ‘আমি শ্বাসকষ্টে ভুগছিলাম। পুলিশ অক্সিজেন ব্যাংকের নাম্বারে ফোন দিলে জেলা পুলিশের অক্সিজেন ব্যাংক থেকে আমার বাসায় অক্সিজেন সিলিন্ডার সরবরাহ করা হয়েছিল, সেই অক্সিজেন ব্যবহারের ফলে আমি ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে ওঠি । পুলিশ সুপারের এই মহতী উদ্যোগকে স্বাগত জানাচ্ছি। পুলিশ সুপার মাছুম আহাম্মদ ভূঞা বলেন, ‘করোনার সেকেন্ড ওয়েভের কারণে আক্রান্তের হার বেড়েছে। এতে অনেক গরিব, অসহায় প্রয়োজনের সময় অক্সিজেন পাচ্ছেন না, এতে অনেকেই মারা যাচ্ছেন। এই সঙ্কটের কথা চিন্তা করে সাধারণ জনগণ ও দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যসহ যে কোনো করোনা আক্রান্ত রোগীদের কাছে বিনামূল্যে অক্সিজেন পৌঁছে দিতে ‘পুলিশ কোভিড অক্সিজেন ব্যাংক’ গঠন করা হয়েছে। এ জন্য ইতিমধ্যে কয়েকজন পুলিশ সদস্যকে প্রাথমিক পর্যায়ে এ অক্সিজেন সিলিন্ডার ব্যবহার, সিলিন্ডার স্পিডের মাত্রা নির্ধারণ, রিফিল ইত্যাদি কৌশল রপ্ত করানো হয়েছে। এই সংখ্যা বাড়ানো হবে। প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, জয়পুরহাট জেলার গরীব, দুঃস্থ, অসহায় করোনায় আক্রান্ত রোগী যারা শ্বাসকষ্টে ভুগছেন অথবা অক্সিজেন সাপোর্ট যাদের অতীব জরুরি তাদের জন্য সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন জয়পুরহাট জেলা পুলিশ। আপাতত ২০টি অক্সিজেন সিলিল্ডার দিয়ে এই অক্সিজেন ব্যাংকের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। পর্যায়ক্রমে প্রয়োজন অনুসারে আরও অক্সিজেন সিলিন্ডার সংযোজন করা হবে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তরিকুল ইসলাম, জয়পুরহাট প্রেসক্লাবের সভাপতি নৃপেন্দ্রনাথ মন্ডল পিপি, সাধারন সম্পাদক খ ম আব্দুর রহমান রনি,সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আলমগীর জাহান প্রমুখ।

জয়পুরহাট পুলিশ সুপার মাছুম আহাম্মদ ভূঞা বলেন, করোনা সংক্রমিত রোগীদের অনেক সময় শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। এ সংকট থেকে সাধারণ জনগণকে রক্ষা করতে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে কোভিড-১৯ রোগীদের অক্সিজেন সিলিন্ডার দেওয়া হবে। প্রাথমিকভাবে ৮ টি অক্সিজেন সিলিন্ডার দিয়ে এই ব্যাংকের কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে আরও সিলিন্ডারের ব্যবস্থা করা হবে। তিনি আরো বলেন, হটলাইন নম্বরে ফোন দিলেই জয়পুরহাট জেলার যেকোনো এলাকায় রোগীদের কাছে পৌঁছে যাবে অক্সিজেন সিলিন্ডার। জেলা সিভিল সার্জন ডা, ওয়াজেদ আলী জানান, করোনার সংক্রমণ রোধে সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। করোনায় আক্রান্ত হয়ে জয়পুরহাটে ১০৯১ জন রোগী বিভিন্ন হাসপাতালে ও কোয়ারেন্টিনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। সর্বশেষ ২৪ ঘন্টায় এ জেলায় ৩৭৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৯৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

Previous articleমুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে উস্কানিমূলক বক্তব্য দিলে কোন ছাড় দেয়া হবে না: শাজাহান খান
Next articleমুলাদীতে তিন আওয়ামী লীগ নেতা বহিষ্কার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।