বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদীতে পরাজিত মেম্বার প্রার্থী কামাল উদ্দীন মোল্লার নেতৃত্বে হামলার ঘটনায় ৪৫জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

ঘটনার ৩ দিন পর হামলায় আহত আলম মোল্লা বৃহস্পতিবার রাতে মুলাদী থানায় মামলা করেন। কামাল উদ্দীন মোল্লা উপজেলার সফিপুর ইউনিয়নের বোয়ালিয়া গ্রামের হামিদ মোল্লার পুত্র। তিনি সফিপুর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডে টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে পরাজিত হয়েছেন। গত ২১ জুন নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পরে তিনি লোকজন নিয়ে বোয়ালিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় মহিলা ভোট কেন্দ্রে হামলা চালিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা। নির্বাচনে বিজয়ী প্রার্থী আলী আহমেদ খান সোহাগ জানান, নির্বাচনের শুরু থেকে কামাল উদ্দীন ও তার লোকজন প্রচারণায় বাধা ও কর্মীদের হুমকি দিয়ে আসছিলো। গত ২১ জুন ভোট গ্রহণ শেষে পরাজয় নিশ্চিত জেনে ভোট গণনার সময় কামাল উদ্দীন ৪০/৫০জন বহিরাগত নিয়ে ভোট কেন্দ্রে হামলা চালিয়ে ভোটগ্রহনকারী কর্মকর্তাদের অবরুদ্ধ করে রাখে। পরে ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ, বিজিবি, কোস্টগার্ড এসে তাদের উদ্ধার করে এবং ভোট গণনা সম্পন্ন করে ফলাফল ঘোষণা করেন।

প্রশাসনের লোকজন চলে গেলে কামাল উদ্দীন পুনঃরায় সোহাগ খানের লোকজনের ওপর হামলা চালায়। হামলায় নৌকার পোলিং এজেন্ট আলম মোল্লা, স্থানীয় সানাউল হক সিকদারসহ ৮/১০জন আহত হয়। আহতদের উদ্ধার করে মুলাদী হাসপাতালে নিয়ে আসলে চিকিৎসক তাদের ঢাকায় প্রেরণ করেন। এঘটনায় আলাউদ্দীন মোল্লা বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার রাতে কামাল উদ্দীন, মালেক মোল্লা, অলিল মোল্লা, রতন মোল্লাসহ ৪৫জনকে আসামী করে মামলা করেন। শুক্রবার সকালে মুলাদী থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে তদন্তে যান। এব্যাপারে তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মিজানুর রহমান বলেন, প্রাথমিক ভাবে ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেছে। হামলাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleসাঁথিয়ায় ৪৯২ পিস ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক
Next articleজয়পুরহাটে স্ত্রীকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা, পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।