আব্দুল লতিফ তালুকদার: আর ক’দিন পরেই মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব কোরবানির ঈদ। ঈদকে সামনে রেখে কামারদের দম ফেলার সময় থাকার কথা না। কিন্তু এবার উল্টো চিত্র কামারপাড়াগুলোয়।

গেল বছরের মতো সেই চিরচেনা লোহার টুংটাং শব্দ নেই। করোনার মহামারী এবং লকডাউনে এবার টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলায় নেই কামারদের ব্যস্ততা। বিভিন্ন হাট বাজারে বন্ধ বেশির ভাগ কামারশালা। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, আগের মতো ব্যস্ততা নেই কামারদের। তবে মাংস কাটার জন্য রেডিমেড তৈরি বটি, দা, চাপাতি, ছোট বড় ছুড়ির চাহিদা কিছুটা বেড়েছে। মুলত লকডাউনের কারনে ক্রেতা সংকট দেখা দিয়েছে। বৃহস্পতিবার উপজেলার গোবিন্দাসী হাটে পর্যাপ্ত পরিমানে গরুম কাটার জন্য সরঞ্জামাদি উঠলেও দাম অস্বাভাবিক। ২ কেজি ওজনের একটি বটির দাম হাকা হচ্ছে ২৪’শ টাকা। বিক্রেতা মো. শরীফ বলেন, লোহার দাম বেশি, তাছাড়া তৈরি খরচও বেড়ে গেছে। ঈদের মাত্র কয়েকদিন বাকি থাকলেও বেচাকিনি একেবারেই কম। আরেক বিক্রেতা বাদশা বলেন, প্রতিটি চাপাতির দাম ৬’শ, ছুড়ি ছোট থেকে বড় ১ থেকে ৩ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। কামার সাহেব আলী বলেন, সারা বছর কোন কাজ থাকে না, দেড় বছর হলো করোনা, আবার লকডাউন। কদিন পরেই ঈদ ব্যন্ততা নেই বললেই চলে। ছয় জনের সংসার চালাতে কষ্ট হচ্ছে। এভাবে সংসার চালাবো কী করে। হাটে বটি কিনতে আসা বেসরকারী চাকুরিজীবি মো. আল আমীন বলেন, করোনায় দিশেহারা সাধারণ মানুষ। ক্রয় ক্ষমতা কমে গেছে। সামনে ঈদ। একটি বটি কিনতে এসেছিল। কামার ছোট একটি বটির দাম চেয়েছেন ২৪’শ টাকা। কোরবানি দিবো না বটি কিনবো। ছোট একটি বটির দাম এতো হয় কি করে।

Previous articleগ্রাহকদের কাছ থেকে ইভ্যালির নেয়ার টাকা ‘হদিস’ মিলছে না
Next articleকক্সবাজারে অল্প বয়সী ভয়ংকর কিলার আশু আলী বন্দুকযুদ্ধে নিহত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।